উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারে ৫টি সচরাচর সমস্যার সমাধান


পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবার শুনে নাও।

বর্তমান দুনিয়ায় মাইক্রোসফট অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের প্রথম পছন্দ উইন্ডোজ ১০। আর গেমার হিসেবে উইন্ডোজ ১০ ছাড়া আমিও অন্য কিছু ভাবতে পারি না। যদিও উইন্ডোজ ৭ বেশ ভালোই মার্কেট দাপিয়ে বেড়িয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উইন্ডোজ ১০ সম্ভবত আগের সংস্করণের তুলনায় অনেক উন্নত মানের একটি অপারেটিং সিস্টেম, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। উইন্ডোজ ৮.১ এবং ৭ এর একটি মিশ্র স্বাদ পাওয়া যায় উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করে।

কথা না বাড়িয়ে আজ আমরা এই অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারে সচরাচর ৫টি সাধারণ সমস্যার সমাধান করতে যাচ্ছি, যার মাধ্যমে বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই উপকৃত হবে বলে আমার বিশ্বাস। তাহলে শুরু করা যাক।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

The Blue Screen

কম্পিউটারে অনেকক্ষণ ধরে বসে আছেন কিংবা কম্পিউটার চালু করতে গেলেন, হঠাৎ ছবির মতো এরকম কিছু প্রত্যক্ষ করলেন। এটা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। তবে মাঝে মাঝে এরকম ফোর্স রিস্টার্ট জনিত সমস্যা বেশি দেখা যায়। এটা হয় বিশেষ করে যখন নতুন কোনো সফটওয়্যার ইনস্টল করেন যা উইন্ডোজ ফায়ারওয়ালে ভেরিফাইড না। কিংবা অনেক বেশি প্রোগ্রাম একইসাথে রান করা, অযথা কয়েকটি অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার ইনস্টল করে রাখা ইত্যাদি কারণে কম্পিউটার ব্লু স্ক্রীণ প্রদর্শন করে ফোর্স রিস্টার্ট করে।

Solution

এই সমস্যা চিহ্নিতকরণ বেশ ঝামেলার ব্যাপার। ঠিক কী কারণে এমন ফোর্স রিস্টার্ট হয়েছে তার কোনো ব্যাখ্যা বা কোড আকারে কোনো সমস্যা উল্লেখ করা হয় না। তাই প্রথমত কম্পিউটারে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপগুলো আন-ইনস্টল করা শ্রেয়। লাইসেন্স ব্যতীত কোনো অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারও রাখা উচিত না। উইন্ডোজ ১০-এর জন্য ডিজাইন করা নয় এমন অ্যাপ অবশ্যই রাখা উচিত না।

ঘুরে আসুন: সফল মানুষেরা যেই ১০টি অভ্যাস মেনে চলেন প্রতিদিন

কম্পিউটার ব্যবহার করার সময় কোন কোন প্রোগ্রাম রান হচ্ছে তা চেক করে নেওয়া উচিত। যদি আপনার কম্পিউটারে আলাদা গেমিং গ্রাফিক্স কার্ড লাগানো থাকে তবে তার জন্য ডাউনলোড করা নির্দিষ্ট সফটওয়্যার আপ-টু-ডেট কিনা তা লক্ষ্য করা, প্রয়োজনে আপডেট করা বা আন-ইনস্টল করে আবার ইনস্টল করা। আর শুরুতেই যদি ব্লু স্ক্রীণের দেখা পান তাহলে অটোমেটিক রিপেয়ারে গিয়ে অ্যাডভান্স অপশনের বিভিন্ন উপায়গুলো চেষ্টা করে দেখুন। তবে ফোর্স রিস্টার্টের জন্য খুব বেশি ঝামেলা পোহাতে হয় না। তবে উপরোক্ত নিয়মগুলো না মেনে চললে যে কোনো সময় উইন্ডোজ ক্র্যাশ হতে পারে।

Windows Update Error

কিছুদিন পরপরই উইন্ডোজ ১০ এর নতুন নতুন ফল ক্র্যাটার সংস্করণ আসে, অনেকেই ভয়ে আপডেট দিতে চায় না। আর তার একমাত্র কারণ হলো আপডেট করত গেলে আপডেটে সমস্যা দেখা দেয় ফলে উভয় সংকটে পড়ে যায় অনেকেই। স্ক্রীণে অনেক কোড দেখা যায় যা আপডেট না হওয়ার কারণগুলো নির্দেশ করে। Windows Update ToolKit ব্যবহার করে আপডেট করার চেয়ে কম্পিউটারে Windows Update অপশনে গিয়ে নতুন সংস্করণের উইন্ডোজ ইনস্টল করে নেয়াই শ্রেয়। কারণ মাইক্রোসফট সব কিছু ভেরিফাই করে তবেই প্রয়োজনীয় সফটওয়্যারগুলো ডাউনলোড করে নেয়। সেক্ষেত্রে আপনার কম্পিউটারে কোনো সমস্যা থাকলে আপডেট এরর দেখাতে পারে।

Solution

প্রথমেই Windows Update Troubleshooter Tool ব্যবহার করে এই সমস্যার সমাধানে অগ্রসর হোন। এটা অপারেটিং সিস্টেমেরই একটি অংশ তাই আলাদা কোনো সফটওয়্যার নামাতে হবে না। এখন নিচের নির্দেশনাবলী মেনে চলুন:

১. Settings অপশনটি নির্বাচন করুন।

২. Update & Security-তে ক্লিক করুন।

৩. Troubleshoot বাছাই করুন।

৪. “Get up and running,” এর নিচে Windows Update অপশনটি পাবেন। ক্লিক করুন।

৫. Run the troubleshooter button এ ক্লিক করুন।

৬. প্রয়োজন হলে Apply this fix অপশনটিতে ক্লিক করুন।

৭. সমস্যা দেখা দিলে নিচের ছবির মতো আসবে

ক্লোজ করুন।

৮. কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন। তারপর আবার এই ক্রমটি অনুসরণ করুন: Settings > Update & Security > Windows Update। এরপর Check for updates এ গিয়ে উইন্ডোজ আপডেট করার চেষ্টা করুন।

হয়ে যাও দক্ষ ভিডিও এডিটর!

কোন ভিডিওকে নিজের পছন্দমত এডিট করার জন্যে অনেক মজার এবং সবচাইতে জনপ্রিয় একটা সফটওয়্যার প্রিমিয়ার প্রো।

প্রিমিয়ার প্রো-এর সাহায্যে ভিডিও এডিটিং শিখতে এক্ষুনি চলে যাও ১০ মিনিট স্কুলের এই প্লে-লিস্টটিতে 😀

১০ মিনিট স্কুলের পাওয়ার পয়েন্ট সিরিজ

অনেক সময় Network Adapter জনিত সমস্যাও উইন্ডোজ আপডেটকে মাঝপথে বন্ধ করে দেয়। তাই Network Adapter troubleshooter-এ গিয়ে বাছাই করুন Find and fix other problem। আশা করি সমাধান হবে।

Damaged files on USB bootable media

ধরুন কম্পিউটার থেকে নতুন উইন্ডোজে আপডেট করতে গিয়ে রীতিমত ঝামেলায় পড়ছেন। কোনোভাবেই আপডেট হচ্ছে না। তখন সহজ উপায় হলো বাজারে আসা সিডি ড্রাইভে নতুন সংস্করণের উইন্ডোজ ইনস্টল করে নেয়া, এটা হলো সর্বশেষ পদক্ষেপ। কিন্তু উইন্ডোজ ১০ এর ক্ষেত্রে এই সময় একটি সাধারণ সমস্যা দেখা যায় আর তা হলো বুটেবল মিডিয়াতে কিছু ফাইল নষ্ট থাকে যার ফলে উইন্ডোজ ইনস্টল হয় না। তবে সমাধান আছে।

Solution

একটি সফটওয়্যার ডাউনলোড করে নিন। নাম হচ্ছে Media Creation Tool। মাইক্রোসফটের ওয়েবসাইটেই পাবেন। এরপর-

১. MediaCreationTool.exe ক্লিক করে টুলটিতে প্রবেশ করুন।

২. Accept করুন।

৩. Create installation media (USB flash drive, DVD, or ISO file) for another PC অপশনটি বাছাই করুন।

৪. Next-এ ক্লিক করুন।

৫. পেনড্রাইভ ব্যবহার করাই শ্রেয় আর সকলেই তা করে থাকেন, অর্থাৎ ডিভিডি থেকে কপি করে পেনড্রাইভে নিয়ে উইন্ডোজ ইনস্টল করাটাই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন তাই পেনড্রাইভ হলে USB flash drive অপশনটি বাছাই করুন।

৬. Next-এ ক্লিক করুন।

৭. Removable drive নির্বাচন করুন নিচের ছবি অনুযায়ী-

৮. Next এ ক্লিক করুন।

৯. Finish ক্লিক করার মাধ্যমে আপনি নতুন Bootable Installation Media ইন্সটল করেছেন। এখন সাধারণ নিয়মের মতো নতুন উইন্ডোজ ইন্সটল করে নিন।

Cortana isn’t working

কর্টানা হলো আপনার পার্সোনাল অ্যাসিসট্যান্ট যে আপনার ভয়েস কমান্ড পেয়ে আপনাকে সব ধরণের সহায়তা করবে। অনেকটা অ্যাপলের সিরি’র মতো। কিন্তু অনেক সময় এই মেসেজটি এসে বেশ মন খারাপ করে দেয়: Cortana isn’t available in your language or region। সেক্ষেত্রে কী করা যায়?

Solution

অবশ্যই আপনার ইন্টারনেট কানেকশন ঠিকঠাক চলছে কিনা তা চেক করুন। যদি থাকে তবে-

১. Settings-এ যান।

২. হাতের বামে Region and Language ধরণের কিছু দেখতে পাবেন। সেখানে English(United Kingdom) দেখতে পাবেন।

৩. ডাউনলোড করুন।

৪. কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন এবং কর্টানা পুনরায় অ্যাকটিভ করুন।

৫. তবুও না হলে আবার Region-এ গিয়ে United States নির্বাচন করুন।

৬. ভাষা হিসেবেও একই United States নির্বাচন করুন।

৭. ইন্সটল করে কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন।

৮. কর্টানা অ্যাকটিভ করার পর আবার আগের অবস্থানে গিয়ে সুবিধামত দেশ বা ভাষা নির্বাচন করুন।

আপনার কর্টানা হাজির।

ঘুরে আসুন: স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে যুগান্তকারী ছয়টি পদক্ষেপ

 

Can’t open Start Menu

অনেক সময় লক্ষ্য করবেন Start Menu অপশনটিতে ক্লিক করার পরও তা ওপেন হয় না। কিবোর্ডের মাধ্যমে ওপেন করতে গেলেও তা ওপেন হয় না। সেক্ষেত্রে রিস্টার্ট করলেই সমাধান হয়ে যায়। কিন্তু সবসময়ই সমাধান হয় না। তাই প্রয়োজন স্থায়ী সমাধান যার ফলে আর কখনো Start Menu লোড হতে সমস্যা করবে না।

Solution-1

খুব সহজ। Run dialogue prompt আনতে হলে কিবোর্ডে Windows বাটন+R প্রেস করুন। একটি ডায়ালগ বক্স আসবে। লিখুন sfc /scannow এবং Enter প্রেস করুন। কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন।

ইংরেজি ভাষা চর্চা করতে আমাদের নতুন গ্রুপ- 10 Minute School English Language Club-এ যোগদান করতে পারো!

এক্ষেত্রে সমাধানের হার শতকরা ৫০ ভাগ। তাই আরেকটি সমাধান চেষ্টা করা যাক।

Solution-2

১. আগের মতোই কমান্ড বক্স রান করুন। লিখুন cmd। তারপর রাইট বাটনে ক্লিক করে Run as administrator অপশনটি বাছাই করুন।

২. টাইপ করুন Dism /Online /Cleanup-Image /RestoreHealth। এরপর Ok প্রেস করুন।

৩. একটি স্ক্যান শুরু হবে। শেষ হলে কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন। সমাধান হয়ে গেল।

মূলত এই ধরণের সমস্যাগুলোই সচরাচর উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারে দেখা যায়। তবে ভয়ের কোনো কারণ নেই। সহজে এভাবেই সমস্যাগুলো সমাধান করে নেয়া যাবে। তবে অবশ্যই গেমার যারা তাদের ক্ষেত্রে গ্রাফিক্স কার্ড, সাউন্ড কার্ড, মাদারবোর্ড, গেমিং সফটওয়্যারসহ সব ধরণের সফটওয়্যার আপডেট রাখা উচিত। আর অবশ্যই অফিসিয়াল সোর্স ছাড়া থার্ড পার্টি সফটওয়্যার ব্যবহার করা উচিত না।

ধন্যবাদ।


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
Author

Zehad Rahman

3150 BC old ancient egyptian hieroglyphs are still fascinating me to be a different thinker. Being a passionate kid, strongly I can confide myself as I’m a slow walker but never step back. I’m a fan of Carl Sagan, like to walk on space when it’s time to sleep.
I’m studying Agricultural Engineering at Bangladesh Agricultural University.
Zehad Rahman
এই লেখকের অন্যন্য লেখাগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন
What are you thinking?