ঢাকার এলাকাগুলোর নামকরণ: পেছনের গল্পটা জানতে?

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবার শুনে নাও।

আমি যখন প্রথম ঢাকা শহরে আসি, তখন আমার খুব পছন্দের একটা কাজ ছিল ঢাকার বিভিন্ন অলিগলিতে একা একা ঘুরে বেড়ানো। তখন নতুন নতুন এলাকায় যাওয়ার পর সেসব এলাকারবিচিত্র সব নাম আমাকে দারুণভাবে আকর্ষণ করত।

কিছু নাম শুনে মজা পেতাম, কোনোটায় বা অবাক হতাম। এই যেমন ঢাকার সবচেয়ে অভিজাত এলাকাগুলোর একটি ধানমণ্ডির নাম ধানমণ্ডি হলো কেনো কেনইবা “বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ”-এর সদর দফতরের নাম পিলখানা। এসব আমাকে বরাবরই ভাবাত। আমাদের এ প্রাণের শহর ঢাকার বিভিন্ন এলাকার বৈচিত্র্যময় সব নামের পেছনের গল্প নিয়েই আজকের এই লেখাটি।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

আসাদগেট

প্রথমে আমরা “আসাদগেট” দিয়ে মোহাম্মদপুরে ঢুকি। এর নাম কিন্তু প্রথমে ছিল “আইয়ুব গেট”, স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের নামে। ১৯৬৯ সালে ১১ দফা দাবী আদায়ের আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে শহীদ ছাত্রনেতা আসাদুজ্জামান আসাদের নামে পরবর্তীতে এই গেটের নামকরণ হয়।

আসাদ কিন্তু এই গেটের কাছে শহীদ হননি। স্বৈরাচারী শাসক আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে আন্দোলনে শহীদ হন বলে তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে এবং প্রতিবাদস্বরূপ ঢাকাবাসী এই গেটটির নাম পরিবর্তন করে ফেলে।

মোহাম্মদপুর

দেশ বিভাগের পর বিপুল সংখ্যক অবাঙালি মুসলিম ঢাকায় এসে “মোহাম্মদপুর” এলাকায় বসবাস শুরু করেন। ১৯৫৮ সালে তাদের এ এলাকায় স্থায়ী বন্দোবস্তের ব্যবস্থা করা হয়।

মহানবী (সাঃ)-এর নাম অনুসারে এই নতুন এলাকার নাম রাখা হয় “মোহাম্মদপুর”। এই এলাকার বিভিন্ন রাস্তার নামও কিন্তু ঢাকার অন্যান্য এলাকার থেকে আলাদা। এই এলাকার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার নামকরণ করা হয়েছে বিভিন্ন মোগল শাসকের নামে।

সঙ্গে প্রাসঙ্গিকভাবে বলেই ফেলি “মিরপুর” এলাকার নামকরণের ইতিহাস। মোগল আমলে ঢাকার অভিজাত লোকদের নামের আগে “মীর” ব্যবহৃত হতো। সম্ভবত বর্তমান মিরপুর এলাকাটি সেরকম কোনো মীরের সম্পত্তির অংশ ছিল, যাঁর নামানুসারে এই এলাকার নামকরণ।

ধানমণ্ডি

মোহাম্মদপুরেই আছে মোগল আমলে নির্মিত ঐতিহাসিক “সাত গম্বুজ মসজিদ”। এর নামানুসারেই সংলগ্ন সড়কের নাম “সাত মসজিদ রোড”। সেই সাত মসজিদ রোড ধরে এগিয়ে আমরা চলে আসি ঢাকা শহরের অন্যতম অভিজাত এলাকা ধানমণ্ডিতে।

“ধানমণ্ডি” নামটা শুনলেই মনে হয় এর সাথে ধানের কোনো যোগসূত্র আছে। আসলেই তাই। ব্রিটিশ আমলে এই এলাকায় ধানের হাট বসত। ফারসি ভাষায় হাটবাজারকে “মণ্ডি” বলা হয়। দুইয়ে মিলে ধানমণ্ডি।

পিলখানা

ধানমণ্ডিতেই “বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ” এর সদর দফতর, যার লোকমুখে প্রচলিত নাম “পিলখানা”। মোগল শাসকদের খুব পছন্দের খেলা ছিল হাতির লড়াই। সাম্রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে হাতি এনে পোষ মানানো হত আজকের পিলখানা যেখানে, সে জায়গাটায়।

এখন শেখা হবে ঘরে বসে, নিজে নিজে!

জীবনে চলার ক্ষেত্রে ইংরেজি শেখার গুরুত্ব অপরিসীম সেটা তুমি ভালো করেই জানো। কিন্তু এই শেখার শুরু কিভাবে করা উচিত কিংবা শেখার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় কোনটি হবে সেটা নিয়ে কি তুমি সন্দিহান?

ঘুরে এস আমাদের English Language Club থেকে। কথা দিচ্ছি, নিরাশ হবে না! 😀

English Language Club!

ফারসি ভাষায় “পিল” মানে হাতি আর “খানা” মানে জায়গা। এ দুইয়ে মিলে পিলখানা। আর হাতিদের পোষ মানাতে এবং দেখাশোনা করতে এ এলাকায় এসেছিল বিপুল সংখ্যক মাহুত। তাদের গড়ে তোলা এলাকাটিই আজকের “মাহুতটুলি”

এলিফ্যান্ট রোড

ধানমণ্ডি থেকে বেড়িয়ে এখন আমাদের গন্তব্য শাহবাগ। যেতে হয় “এলিফ্যান্ট রোড” হয়ে। সেই আমলে ঢাকেশ্বরী মন্দিরের পাশে ছিল বিশাল ঘন জঙ্গল। পিলখানার হাতিগুলোকে খাওয়াতে নিয়ে যাওয়া হত সেই জঙ্গলে। যেই রাস্তা ধরে তাদের নিয়ে যাওয়া হতো সেটাই আজকের এলিফ্যান্ট রোড।

এখন সেই বাগানের ছিটেফোঁটা অবশিষ্ট না থাকলেও লোকমুখে প্রচলিত নামটিই রয়ে গেছে

আর এই রাস্তায় একটা বেশ উঁচু পুল ছিল। এর নিচ দিয়ে হাতিরা চলাচল করতে পারত। সেই পুল থেকেই এলাকাটার নাম হয়ে গেলো “হাতিরপুল”। এই এলাকাগুলোর কাছেই বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন একটা জায়গা আছে। ব্রিটিশ আমলে এখানে প্রচুর নীলের চাষ হতো। সেখানে থেকেই এই এলাকার নাম “নীলক্ষেত”

শাহবাগ

এলিফ্যান্ট রোড ধরে আমরা পৌঁছে গেলাম শাহবাগে।  “শাহবাগ”, যার অর্থ রাজকীয় বাগান। মোগল সম্রাটরা ঢাকাকে প্রাদেশিক রাজধানী ঘোষণার পর এই এলাকায় দৃষ্টিনন্দন বিশাল এক বাগান গড়ে তোলেন। যা থেকে এই এলাকার নাম হয় শাহবাগ। এখন সেই বাগানের ছিটেফোঁটা অবশিষ্ট না থাকলেও লোকমুখে প্রচলিত নামটিই রয়ে গেছে।

রাজধানীর নাম জানাটা সাধারণ জ্ঞানের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ। তাই ১০ মিনিট স্কুলের এই মজার কুইজটির মধ্যমে যাচাই করে নাও নিজেকে!

ধারণা করা হয় এই শাহবাগেরই একটি অংশ ছিল আজকের “পরীবাগ”। সম্ভবত নবাব সলিমুল্লাহর সৎ বোন ছিলেন পরীবানু। নবাব সলিমুল্লাহ এই এলাকায় পরীবানুকে একটি বাগানবাড়ি করে দেন, যেটা ছিল পরীবানুর আবাসস্থল। তাঁর নামানুসারেই এলাকাটির নাম হয় পরীবাগ।

এরকম ঢাকার প্রায় প্রতিটি এলাকারই নামকরণের পেছনে মজার এবং আকর্ষণীয় একটা ইতিহাস আছে। এক লেখায় সবগুলো লিখে ফেলা নিশ্চয়ই সম্ভব না। তুমি ঢাকার যে এলাকায় আছ সে এলাকার নাম এবং নামকরণের ইতিহাসটিও আমাদের সাথে শেয়ার করে ফেলো নিচের কমেন্টবক্সে। আজ তবে এ পর্যন্তই, আরেকদিন আবারো হাজির হবো ঢাকার অন্যান্য সব এলাকার মজার ইতিহাস নিয়ে!


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
Author

Tawsif Rahman

স্বপ্ন দেখি অনেক বড় হওয়ার ( আক্ষরিক অর্থে!)। চাই কিছু স্মৃতি সংগ্রহ করতে, যা রোমন্থন করে জীবনের শেষ পর্যায়ে আনন্দ পেতে পারি। যা ভালো লাগে করি, যা লাগে না, চাপে পড়ে করে ফেলি! এভাবেই চলে যাচ্ছে, হয়তো চলে যাবে।
Tawsif Rahman
এই লেখকের অন্যন্য লেখাগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন
What are you thinking?