দূরদর্শী নেতৃত্বে দরকার রূপকল্প: পর্ব দুই

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবারে শুনে নাও!

 

আমরা নিজেরা যেমন আছি, আমরা যেকোন জিনিসকে সেই রকমই দেখি। তারপরও রূপকল্প পূর্ণ করতে যে বাধাগুলো আসে তা মূলত একটি লোকজন ভিত্তিক সমস্যা। সাধারণত দশ ধরনের লোক একটি সংগঠনে রূপকল্প পূরণ করতে বাধা দেয়। আপনি যদি এই দশ ধরনের লোক হতে সতর্ক থাকতে পারেন তবে আপনি আপনার রূপকল্প পূরণ করতে পারবেন।

১. সীমিত নেতা

সবকিছুর উত্থান ও পতন নির্ভর করে নেতৃত্বের ওপর। এই কথাটি রূপকল্পের জন্য নিশ্চিতভাবে সত্য। একজন সীমিত নেতার হয় রূপকল্প থাকে না, না-হয় সে অন্যদের মধ্যে এই রূপকল্পকে পৌঁছে দিতে ব্যর্থ হয়।

ফ্রান্সের এক রাষ্ট্রপতি বলেছিলেন, ‘যদি আপনি বড় কিছু করেন, তবে আপনি বড় বড় লোকজনকে আকর্ষণ করবেন। আর আপনি যদি ছোট কিছু করেন, তবে আপনি ছোট লোকজনকে আকর্ষণ করবেন। সাধারণত ছোট লোকজনই সমস্যা তৈরি করে।’

২. বদ্ধ চিন্তাবিদ

জর্জ বার্নাড শ’ বলেছিলেন, ‘কিছু লোকজন সমস্যা দেখে বলে “হায়, এটা আমার সাথেই কেন হলো?” (বদ্ধ চিন্তাবিদ)। আর কিছু লোকজন সমস্যা দেখে বলে “চল, দেখি কী করা যায়?” (সৃজনশীল চিন্তাবিদ)।’

বদ্ধ চিন্তা নিয়ে একটি কৌতুক বলি। আসাদ ও সোয়াদ দুই বন্ধু। আসাদ তার দুই হাত সোয়াদকে দেখিয়ে বললো, ‘এই হাতগুলো একদিন মহান জিনিস করে দেখাবে। এই হাতগুলো একদিন বড় বড় ফ্লাইওভার নির্মাণ করবে বা অসুস্থদের সুস্থ করবে বা দুনিয়া-কাঁপানো কোন উপন্যাস লিখবে। এই হাতগুলো একদিন বিশ্বকে পরিবর্তন করবে!’ সোয়াদ যে বদ্ধ চিন্তা করতো, জিনিসপত্র যেমন তেমনিই দেখতো, সে বললো, ‘এগুলোর মধ্যে ঝোল লেগে আছে। যা আগে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেল।’

৩. কঠিন তর্কবাজ ও বাচাল

বেশিরভাগ রূপকল্পগুলো বাস্তবে পূরণ করা অসম্ভব হয়ে পড়ে কিছু কঠিন তর্কবাজ ও বাচাল লোকজনের জন্য। আপনি যদি কিছু সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চিত হতে চান তবে আপনাকে এটা সম্পর্কে সবকিছু জানতে হবে অথবা পুরোপুরি বাদ দিতে হবে। বেশিরভাগ সময় দেখা যায় যে তর্কবাজ লোকজন সবকিছুই জানে কিন্তু কাজে লাগানোর মতো কিছু বলতে পারে না।যারা তর্কবাজ ও বাচাল তারা ঘটনা ঘটার পরে ঘটনার বর্ণনা দেয়। কিন্তু ঘটনা ঘটার আগে কোন ইঙ্গিত দিতে পারে না।

যুক্তরাষ্ট্রের মেধাস্বত্ব দফতরের প্রধান চার্লস এইচ. ডুয়েল বলেছিলেন, ‘আবিষ্কার যা হওয়ার তার সবকিছুই আবিষ্কার হয়ে গেছে।’ এটা তিনি বলেছিলেন ১৮৯৯ সালে! তারপর ইংল্যান্ডের লর্ড কেলভিন ছিলেন ইংল্যান্ডের রয়েল সোসাইটির প্রধান (একটি বিজ্ঞান সংস্থার প্রধান)। তিনি ১৮৮৫ সালে বলেছিলেন, ‘বাতাসের চেয়ে ভারী কোন যন্ত্র দ্বারা বাতাসে উড়া অসম্ভব।’ কিন্তু যারা রূপকল্পধারী অগ্রদূত তারা এই ব্যাপারগুলোকে সম্ভব করে দেখিয়েছেন।

৪. অতীত পরাজয়

বহু লোকজন তাদের অতীত পরাজয়, ব্যর্থতা নিয়ে পড়ে থাকে, ভয় পায়। তারা রূপকল্প নিয়ে ঝুঁকিতে থাকে। তাদের নীতি হচ্ছে, ‘যদি আপনি প্রথমবার সফল না হন, তবে আপনি যে চেষ্টাগুলো করেছেন তার সবকিছু মুছে ফেলুন।’ তারা অন্যদের চেষ্টা করাতেও বাধা দেয়।

৫. ফাঁকা মাঠে গোল

লোকজন জীবনে আরাম, আনন্দ ও নিরাপত্তার জন্য সংগ্রাম করে। আরাম থেকে সুখ আসে, জীবনের আনন্দ উপভোগ করা যায়। কিন্তু অতিরিক্ত আরামে বিরক্তি চলে আসে, বিষণ্ণতা দেখা দেয়। একটি দোয়েল পাখির কথা চিন্তা করুন। দোয়েল পাখির যখন ডিম পাড়ার সময় হয় তখন পাখির বাসাটাই তার জন্য উত্তম। কিন্তু পাখির বাসা দোয়েলকে খাবার দিবে না। খাবারের জন্য তাকে উড়ে যেতে হবে। বাতাসের ঝাপটা, গাছের ডালপালা পেরিয়ে যেতে হবে। তাকে খাবার খোঁজার জন্য বহুদূর কষ্ট করে উড়ে যেতে হবে। বেশিরভাগ লোকজন পাখির বাসার মতো, নিজেদের বাসা ছেড়ে উড়তে চায় না। তারা তাদের গণ্ডিবদ্ধ জীবন থেকে বের হতে চায় না।

নেতৃত্ব নামক একটি সাময়িকীতে লিন এনডারসন একটি গল্প লেখেন। লোকজন যখন রূপকল্প হারিয়ে ফেলে তখন কী হয়, তাই নিয়েই গল্পটি। ৩৭০ বছর আগে একদল লোক মহাসাগর পাড়ি দিয়ে আমেরিকার সমুদ্র সৈকতে পৌঁছায়। তারা সেখানে বসতি স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়। প্রথম বছর তারা একটি শহর নির্মাণ করে। দ্বিতীয় বছর তারা নির্বাচনের মাধ্যমে শহর পরিচালনার জন্য একটি সমিতি করে।

তৃতীয় বছর সরকার সিদ্ধান্ত নেয়, তারা জঙ্গলের মধ্য দিয়ে একটি পাঁচ মাইলের রাস্তা নির্মাণ করবে। চতুর্থ বছর এলাকার জনগণ এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে। কারণ তারা ভেবেছিল জঙ্গলের মধ্য দিয়ে একটি পাঁচ মাইলের রাস্তা নির্মাণ জনগণের অর্থের অপচয় করবে। এই লোকজন যারা মহাসমুদ্র পাড়ি দিয়ে এসেছে, তারা আজকে নিজেদের মঙ্গলের জন্য জঙ্গলের মধ্য দিয়ে একটি পাঁচ মাইলের রাস্তা দেখতে পাচ্ছে না। এজন্য বলা হয় আপনি একটি কাজ করার আগে, আপনার মস্তিষ্কে কাজটি সম্পন্ন করার চিত্র দেখুন, তবেই কাজটি বাস্তবে সম্পন্ন করতে পারবেন।

৬. সংরক্ষণশীল লোকজন

কিছু লোকজন অগ্রগতির জন্য নিজেকে বদলাতে চায় না, তারা যেমন আছে তেমনই থাকতে চায়। তাদের এই সংরক্ষণশীল আচরণ তাদেরকে কখনো রূপকল্প দেখতে বা কাজ করতে সহায়তা করে না। তারা অন্যের রূপকল্প পূরণেও বাধা দেয়। নিজেদের কোন স্বপ্ন না থাকার দরুন তারা অন্যের স্বপ্ন পূরণের চেষ্টাকেও বাধা দেয়। এই ধরনের লোকজন একই কাজ একই পদ্ধতিতে করে যায়। নতুনত্বকে তারা ভয় পায়। নিজেদের পূর্বের অবস্থান থেকেই সবকাজ করতে চায়।

৭. ভিড়ের সাথে চলা লোকজন

কিছু লোকজন ভিড় থেকে বের হয়ে আলাদা হাঁটতে চায় না। তারা অস্বস্তি অনুভব করে। তারা ভিড়ের মধ্যে মিশে থাকতে চায়। নিজেদেরকে আলাদাভাবে দেখাতে তারা ভয় পায়। এ ধরনের লোকজন একটি রূপকল্পকে তখনই গ্রহণ করবে যখন অধিকাংশ লোকজন এটাকে গ্রহণ করে নিবে। তারা কখনো সামনের সারিতে আসতে চায় না।

প্রকৃত নেতারা সর্বদাই কমসংখ্যকের সারিতে থাকে। কারণ তারা অধিকাংশ লোকজনের চিন্তা থেকে এগিয়ে থাকে। এমনকি অধিকাংশ লোকজন যখন রূপকল্পকে অনুধাবন করে, তখনও নেতারা কাজ করতে থাকে ও এগিয়ে থাকে। প্রথমদিকে তাদের সমর্থন খুবই কম থাকে। কিন্তু ধীরে ধীরে সময়ের সাথে সাথে লোকজনের সামনে নেতার রূপকল্প স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এভাবেই প্রকৃত নেতারা তাদের রূপকল্প পূরণে এগিয়ে যায়।

৮. সমস্যা খুঁজে বেড়ায়

কিছু লোকজন যেকোন সমাধানের মধ্যেও সমস্যা খুঁজে বেড়ায়। তারা যেকোন সমাধানেও সমস্যা দেখে। আসলে আপনি যখন আপনার জীবনের একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য থেকে চোখ সরিয়ে ফেলবেন তখনই সমস্যা দেখবেন। মজার ব্যাপার হচ্ছে, কিছু লোকজন মনে করে যে সমস্যা খুঁজে বের করতে পারাও একটি কৃতিত্ব। আসলে তা নয়। এটা হচ্ছে একজন ব্যক্তির রূপকল্পের অভাব। এই ধরনের লোকজন রূপকল্পকে পাশ কাটিয়ে কেবল সমস্যা দেখে বেড়ায়। আর কোন সমাধানও দিতে পারে না। এদের জীবনে কোন ভবিষ্যৎ নির্দিষ্ট লক্ষ্য নেই। তারা একথা স্বীকারও করবে না। কোন রকম একটি আবছা চিন্তা নিয়ে তারা বাস করে।

কারডিনাল জন হেনরি নিউম্যান বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সবকিছু ঠিকভাবে সম্পন্ন হলে কাজ আরম্ভ করবে বলে চিন্তা করে সে একটি কাজ কখনো সম্পন্ন করতে পারে না।’

৯. স্বার্থপর

লোকজন যারা কেবল নিজেদের স্বার্থের কথা চিন্তা করে তারা খুব ছোট মন মানসিকতার হয়। তারা জীবনে কখনো বেশি কিছু লাভ করতে পারে না। মহান কিছু সম্পন্ন করতে হলে দলবদ্ধভাবে কাজ করতে হয়। একত্রে কাজ করলে অনেকদূর যাওয়া যায়। বাংলায় প্রবাদ আছে, ‘দশে মিলে করি কাজ, হারি জিতি নাহি লাজ।’ স্বার্থপর লোকদের কখনো ভবিষ্যৎ রূপকল্প থাকে না। তারা নিজেদের স্বার্থের প্রতি বেশি আগ্রহী। এজন্যই তারা অদূর ভবিষ্যতের চিন্তা করতে পারে না, একত্রে কাজ করতে পারে না। এমনকি তারা অন্যের আনন্দে আনন্দিতও হতে পারে না। তাদের চিন্তা থাকে, ‘এতে আমার লাভ কী? আমি কী পাব?’ তাদের এই স্বার্থপর চিন্তাই তাদেরকে নিচুপদে বেঁধে রাখে।

১০. ব্যর্থতার পূর্বাভাস দানকারী

কিছু লোকজনের স্বভাবই হচ্ছে ভুল পথে পা দেওয়া। তারা খুব ভালো যন্ত্রাংশ থেকেও ত্রুটি খুঁজে বের করে। তারা কেবল বৈসাদৃশ্য বের করতে সক্ষম। দলের মধ্যে অনৈক্য তৈরি করে। তারা কেবল নেতিবাচক সুরে গান গাইতে থাকে। তাদের গানের শব্দে থাকে ব্যর্থতা, পরাজয়। তারা সব জায়গায় কাজ করার জন্য অন্যের অনুমতি চেয়ে বেড়ায়। তাদের ছায়াতেই তাদের হতাশা, অন্ধকার ফুটে ওঠে। তাদের বাহ্যিক ভঙ্গি সর্বদা বিষণ্ণ, সর্বদা খারাপ সময় ও অর্থ সংকটে ভোগে। তাদের জীবনের সবকিছুই সংকুচিত হতে থাকে; কোনকিছুই প্রসারিত হয় না বা জীবনে কোন অগ্রগতি নেই।

এই সম্পর্কে একটি গল্প বলি। হাডসন নদীতে একবার একটি জাহাজ নামানো হয়। তখনকার দিনে নদীতে জাহাজ চলা ছিল একটি নতুন ব্যাপার। এই প্রথম হাডসন নদীতে একটি জাহাজ চালানো হচ্ছে। জাহাজ নামানোর সময় একদল লোক বলছিল, ‘এই জাহাজ কখনো নদীতে নামাতে পারবে না’। তারপর যখন প্রকৌশলীরা জাহাজটিকে নদীতে নামালো তখন নদীর বুক চিরে জাহাজ চলতে লাগলো। সবাই বিস্ময় ভরে দেখতে লাগলো যে নদীতে এত বড় ও বিশাল জাহাজ চলছে। তখন সেই ব্যর্থতার পূর্বাভাস দানকারী লোকজন বলতে লাগলো, ‘জাহাজ তো নদীতে চলছে। কিন্তু এটাকে কখনো থামাতে পারবে না।’

চিনা একটি প্রবাদ আমি খুব পছন্দ করি। সেখানে বলা হয়েছে, ‘যে ব্যক্তি বলে এটা করা যাবে না, তার উচিত যে ব্যক্তি কাজটি করছে তাকে বিরক্ত না করা।’

এরকম দশ ধরনের ব্যক্তির সংস্রব থেকে দূরে থাকলে আপনি আপনার রূপকল্প বাস্তব হবার আশা রাখতে পারেন। রূপকল্প পূরণে অনেক বাধা আসতে পারে, তবে নিজের লোকজনদের মধ্য থেকে বাধা আসলে তার ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা কঠিন। তাই নিজের অনুসারী বাছাইয়ে সতর্ক হলেই কেবল আপনি আপনার রূপকল্প বাস্তবায়নে সফল হবেন।

এই লেখাটি লেখকের ডিভেলপিং দ্য লিডার উইদিন ইউ বইটি থেকে নেয়া হয়েছে। পুরো বইটি কিনতে চাইলে ঘুরে আসুন এই লিংক থেকে।

এই লেখাটির অডিওবুকটি পড়েছে শাওন চৌধুরী


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?