Productivity বাড়বে এবার সহজ কিছু কৌশলে!

পড়ালেখা বা যে কোন কাজে আমরা সবসময় একটি ভাল ফলাফল প্রত্যাশা করি। শুধু নিজেরাই না, বাবা-মা থেকে শুরু করে কাছের প্রিয়জন, সবাই চায় আমরা ভালো কিছু করি। আর সেই ভাল কিছু করার জন্য অবশ্যই নিজের Productivity বাড়ানো প্রয়োজন। অবশ্য Productive থাকা বা হওয়াটা খুব কষ্টের। পড়া বা কাজের চাপে অন্য কোথাও মন চলে যাওয়াটা খুবই স্বাভাবিক। বিশেষ করে মূল কাজে মনোযোগ ধরে রাখা অনেক সময়ই দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে। তারপরও যতোটুকু পারা যায় Productive থাকার চেষ্টা করতে হবে।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

Productivity কী?

সারাদিন ধরে অঢেল কাজ করাকে Productivity বলে না। Productivity হল আপনি আপনার সময়কে কীভাবে সর্বোত্তম উপায়ে কাজে লাগাবেন। প্রোডাক্টিভিটি বাড়ানোর মূলমন্ত্র হচ্ছে, “ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না”।

আমরা অনেক সময়ই হুট করে কিছু কাজ করে ফেলি। পরে আফসোস করি, কাজটা না করলেই হয়তো ভাল হত। পরে পস্তানোর চাইতে আগে থেকেই পরিকল্পনামাফিক কাজ করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। আফসোসও কম হয়।life hacks, productivity tips, study hacks

তাই যে কোন কিছু শুরুর আগেই ঠিক করে নিতে হবে কোন কাজটি আগে করতে হবে। এর পাশাপাশি একটানা কাজ না করে মাঝে মাঝে বিরতি দিয়ে ধীরে সুস্থে যে কোন কাজ করা ভালো। কাজের মাঝে বিরতি Productivity বাড়াতে অনেকাংশে সাহায্য করে।

কীভাবে বাড়ানো যায় Productivity?

প্রোডাক্টিভিটি বাড়াতে চাই আমরা সবাই। কিন্তু কীভাবে? চলুন প্রোডাক্টিভিটি বাড়ানোর কিছু কার্যকর ও সহজ উপায় জেনে নেই-

৩. Pomodoro:

Pomodoro অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি পদ্ধতি। এটি আবিষ্কার করেন ফ্রান্সিসকো কিরিল্লো নামে একজন। আজ থেকে প্রায় ৩৭ বছর আগে, অর্থাৎ ১৯৮০ সালে। এটি এমন এক পদ্ধতি যার সাহায্যে যে কোন কাজই খুব দ্রুত এবং সহজে করা যায়।

জেনে নেই পমোডরো পদ্ধতিটি:

  • প্রথমে কোন কাজটি করব তা ঠিক করতে হবে।
  • এরপর টাইমার-এ ২৫ মিনিট ‍সময় সেট করতে হবে।
  • এবার কাজ শুরুর পালা!!
  • ২৫ মিনিট পর ৫ মিনিটের একটু বিরতি। এভাবে স্বল্প বিরতি দিয়ে দিয়ে ২৫ মিনিট করে কাজ করলে খুব দ্রুত যে কোন কাজ করা যায়।
  • তবে একটি কাজ পুরো শেষ হবার পর একটু তুলনামূলক দীর্ঘ সময় বিরতি নিতে হবে। বিরতির পর পরবর্তী কোন কাজ শুরু করতে হবে।
স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যাই আরো একধাপ!

আমাদের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌছানোর জন্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে একটি সফল ইন্টারভিউ। ইন্টারভিউ বোর্ডে পারফরম্যান্সের ওপরে একটি চাকরি পাওয়া না পাওয়া অনেক বেশি নির্ভর করে।

আর তাই ইন্টারভিউকে ভয় না পেয়ে আত্মবিশ্বাসের সাথে এর বাধা উৎরে যেতে দেখে নাও এই ভিডিও সিরিজটি!

১০ মিনিট স্কুলের Interview Skills সিরিজ

২. GTD:

প্রোডাক্টিভিটি বাড়নোর অন্যতম একটি পদ্ধতি হল ডেভিড অ্যালেন-এর GTD method GTD মানে হচ্ছে: Getting Things Done.

  • প্রথম ধাপটি হল list তৈরী করা। সারাদিন কী কী কাজ করব তার একটি লিস্ট তৈরি করা
  • এরপর processing যেমন ধরুন একটা প্রজেক্ট জমা দিতে হবে। আপনার লিস্টে প্রজেক্টের পাশে সাবমিশনের তারিখটিও লিখে রাখতে হবে। সম্ভব হলে টাইমলাইন ধরে কাজের অগ্রগতিও থাকতে পারে।
  • Organizing: কোন কাজটি কখন করব, কোনটা আগে, কোনটা পরে সেটি ঠিক মত সাজাতে হবে।
  • সবশেষে, কাজগুলো প্ল্যান অনুযায়ী ঠিকমত হয়েছে কি না তাও রিভিউ করতে হবে।

আমাদের ডিজিটাল গ্যাজেটগুলোকেও প্রোডাক্টিভিটি বাড়ানোর কাজে ব্যবহার করা যায়

১. Don’t break the chain:

এই পদ্ধতিটি খুব চমৎকার। সেইনফিল্ড এই পদ্ধতিটি আবিষ্কার করেন। এটি ছিল তার জীবনের সফলতার অন্যতম সূত্র।

ধরুন কেউ লেখক হতে চায়। সে প্রতিদিন কিছু না কিছু লিখে সেটা ক্যালেন্ডার এ মার্ক করে রাখে। আর এভাবেই এটি চলতে থাকে। যদি সত্যি সত্যি এটা কোন বাধা না মেনে এভাবেই চলতে থাকে তবেই না বলা যায়, Don’t break the chain. এই পদ্ধতিটির বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাও রয়েছে। নিয়মিত কাজ করার মাধ্যমে একটি ভাল অভ্যাস গড়ে উঠে। প্রতিদিন মার্ক করে রাখার মাধ্যমে এটি নতুন কাজ করার অনুপ্রেরণা জাগায়। সামনে এগিয়ে চলার সাহস দেয়।

ইংরেজি ভাষা চর্চা করতে আমাদের নতুন গ্রুপ- 10 Minute School English Language Club-এ যোগদান করতে পারো!

আজকে মাত্র তিনটি উপায় নিয়ে আলোচনা করলাম। এগুলো ছাড়াও আরও কিছু পদ্ধতি আছে। যেমন কানবান পদ্ধতি কিংবা ‍Action method পদ্ধতি। আরেকদিন বলব ওসব নিয়ে। এখন তো ডিজিটাল যুগ। আমাদের ডিজিটাল গ্যাজেটগুলোকেও Productivity বাড়ানোর কাজে ব্যবহার করা যায়। যেমন Productivity বাড়ানোর জন্য কিছু অ্যাপ ব্যবহার করা যেতে পারে। বিশেষ করে, Pomodoro, To-do list বা Focus booster এই অ্যাপগুলো উল্লেখযোগ্য।life hacks, productivity tips, study hacks


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

এই লেখাটি শেয়ার কর!
Author
What are you thinking?

Loved this article?

Share it with your friends and show some love :)