এনকোডার ও ডিকোডার

এনকোডার


আমরা অনেকেই প্রতিদিন নানা কাজে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ব্যবহার করি। কাজ করার সময় আমরা কী-বোর্ড এর মাধ্যমে অনেক কিছু টাইপ করি। আমরা যা টাইপ করি কম্পিউটার বা ল্যাপটপের স্ক্রিনে সেটাই দেখায়। মজার বিষয় হচ্ছে, কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ০ এবং ১ ছাড়া কিছুই বুঝে না। কিন্তু আমরা তো কী-বোর্ড এর মাধ্যমে এক বা শূন্য ছাড়াও আরো অনেক কিছু টাইপ করি, সেগুলো কিভাবে কম্পিউটার বুঝে নেয় এবং স্ক্রিনে শো করে? এই প্রশ্নটি কি কখনো আমাদের অনেকের মাথায় আসে নাই? অবশ্যই এসেছে। কী-বোর্ড এর মাধ্যমে আমরা যা লিখি, তা কম্পিউটারকে কম্পিউটার এর বোধগম্য ভাষায় রূপান্তর এর কাজটি করে এনকোডার।


হাইলাইট করা শব্দগুলোর উপর মাউসের কার্সর ধরতে হবে। মোবাইল ব্যবহারকারীরা শব্দগুলোর উপর স্পর্শ করো।

এনকোডার:নকোডার এক ধরনের ডিজিটাল বর্তনী যার কাজ হলো মানুষের ভাষাকে কম্পিউটারের বোধগম্য যান্ত্রিক ভাষায় রূপান্তরিত করা। এ বর্তনীর মাধ্যমে সর্বাধিক 2ⁿ টি ইনপুট থেকে n টি আউটপুট লাইন পাওয়া যায়। যেমন- আটটি (2³) ইনপুট থাকলে তার আউটপুট হবে তিনটি (3)। এনকোডারে যেকোনো মুহূর্তে একটি মাত্র ইনপুট ১ এবং বাকি সব ইনপুট ০ থাকে । এনকোডার সাধারণত ইনপুট ডিভাইস অর্থাৎ কী-বোর্ডের সাথে যুক্ত থাকে।

কয়েক ধরনের এনকোডার রয়েছে। এগুলো হলো-
১। বাইনারি এনকোডার (২ টু ৪ এনকোডার),
২। ডেসিমেল টু বিসিডি এনকোডার,
৩। ৮ টু ৩ এনকোডার,
৪। ১৬ টু ৪ এনকোডার।


কয়েক ধরনের এনকোডার রয়েছে। এগুলো হলো-

১। বাইনারি এনকোডার (৪ টু ২ এনকোডার),

২। ডেসিমেল টু বিসিডি এনকোডার,

৩। অক্টাল টু বাইনারি এনকোডার,

৪। হেক্সাডেসিমেল টু বাইনারি এনকোডার।

ড্রপ ডাউনগুলোতে ক্লিক করে জেনে নাও বিস্তারিত


এনকোডার এর ব্যবহার:

১। এনকোডার আলফানিউমেরিক কোডকে ASCIIEBCDIC কোডে রূপান্তর করে।
২। দশমিক সংখ্যাকে বিভিন্ন কোডে রূপান্তর করে।
৩। এনকোডারের সাহায্যে দশমিক সংখ্যাকে সমতুল্য বাইনারি সংখ্যায় রূপান্তর করা যায়।
৪। এনকোডার সাধারণ ভাষায় লেখা বর্ণকে কোড ভাষার বর্ণতে পরিণত করে।

এতক্ষণ আমরা এনকোডার কী, এর প্রকারভেদ ও ব্যবহার সম্পর্কে জানলাম। এইবার আমরা কয়েক ধরনের এনকোডার এর ব্লক চিত্র, সত্যক সারণী ও লজিক সার্কিট সম্পর্কে জানবো।

অক্টাল টু বাইনারি এনকোডার এর ব্লক চিত্র


অক্টাল টু বাইনারি এনকোডার এর লজিক বর্তনী


অক্টাল টু বাইনারি এনকোডার এর সত্যক সারণী


বাইনারী এনকোডার এর ব্লক চিত্র


বাইনারী এনকোডার এর লজিক বর্তনী


বাইনারী এনকোডার এর সত্যক সারণী



সঠিক উত্তরে ক্লিক করো


ডিকোডার


এনকোডার এর মাধ্যমে আমরা আমাদের ভাষাকে কম্পিউটারের বোধগম্য ভাষায় রূপান্তর করেছি। কিন্তু কম্পিউটার যদি তার বোধগম্য ভাষাকেই স্ক্রিনে প্রদর্শন করে, তাহলে কি আমাদের পক্ষে তা বোঝা সম্ভব? অবশ্যই না। এইজন্য এমন কিছু প্রয়োজন যা কম্পিউটারের বোধগম্য ভাষাকে আমাদের বোধগম্য ভাষায় রুপান্তরিত করবে। আর এই কাজটিই করে ডিকোডার।

ডিকোডার: ডিকোডার হলো এমন একটি সমবায় বর্তনী যার কাজ হলো কম্পিউটারের বোধগম্য যান্ত্রিক ভাষাকে মানুষের ভাষায় রূপান্তরিত করা। যার সাহায্যে n টি ইনপুট থেকে সর্বাধিক 2^n টি আউটপুট লাইন পাওয়া যায়। যে কোনো একটি আউটপুট লাইনের মান ১ হলে বাকি সবকটি আউটপুট লাইনের মান ০ হবে। কখন কোনো আউটপুট লাইনের মান ১ হবে তা নির্ভর করে ইনপুটগুলোর মানের উপর।


কয়েক ধরনের ডিকোডার রয়েছে। এগুলো হলো-

১। বাইনারি ডিকোডার (২ টু ৪ ডিকোডার),

২। বাইনারি টু অক্টাল ডিকোডার,

৩। বাইনারি টু হেক্সাডেসিমেল ডিকোডার।

ড্রপ ডাউনগুলোতে ক্লিক করে জেনে নাও বিস্তারিত


হাইলাইট করা শব্দগুলোর উপর মাউসের কার্সর ধরতে হবে। মোবাইল ব্যবহারকারীরা শব্দগুলোর উপর স্পর্শ করো।

ডিকোডারের ব্যবহার:

১। কম্পিউটারে ব্যবহৃত ভাষাকে মানুষের বোধগম্য ভাষায় রূপান্তর করে।

২। জটিল কোডকে সহজ কোডে রূপান্তর করে (যেমন- ASCII কোডের 100000 কে A তে রূপান্তর করে) ।

৩। ডিকোডার ব্যবহৃত হয় ডিসপ্লে ইউনিটে।

৪। ডিকোডারের সাহায্যে বাইনারি সংখ্যাকে সমতুল্য দশমিক সংখ্যায় রূপান্তর করা যায়।

৫। কন্ট্রোল ইউনিটে বিভিন্ন নির্দেশ, মেমরি অ্যাড্রেস কাউন্টা এর বাইনারি সংখ্যা ইত্যাদি ডিকোড করতে ডিকোডার ব্যবহৃত হয়।

। ডিকোডার এর সাহায্যে যে কোনো সমবায় সার্কিট রূপায়িত করা যায়।

বাইনারী টু অক্টাল ডিকোডার এর ব্লক চিত্র


বাইনারী টু অক্টাল ডিকোডার এর লজিক সার্কিট


বাইনারী টু অক্টাল ডিকোডার এর সত্যক সারণী


বাইনারী ডিকোডার এর ব্লক চিত্র, লজিক সার্কিট ও সত্যক সারণী




নিম্নের GIF টি দেখলে আশা করি তোমরা এনকোডার ও ডিকোডার সংক্রান্ত ধারণাটি ভালোভাবে রপ্ত কর‍তে পারবে-

এনকোডার ও ডিকোডার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ও বর্তনীর মাধ্যমে এর প্রয়োগ দেখতে এখনই নিচের ভিডিওটি দেখে ফেলো-

https://youtu.be/yxZLJw845vI

প্রশ্নটি পড়ে উত্তরটি অনুমান করো


আশা করি, এই স্মার্ট বুকটি থেকে তোমরা এনকোডার ও ডিকোডার সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেয়েছো। 10 Minute School এর পক্ষ থেকে তোমাদের জন্য শুভকামনা রইলো।