এইচএসসি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

ক্লাউড কম্পিউটিং

Supported by Matador Stationary

আমাদের সবার ফেসবুক ফ্রেন্ডলিস্টে এরকম বন্ধু থাকে যার কাজই হচ্ছে সারাদিন বিভিন্ন ভঙ্গিতে  ছবি তুলে সেগুলো ফেসবুকে আপলোড করা। আবার আমরাও প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ফটো তুলে ফেসবুকে আপলোড করি। আমাদের আপলোড করা এসব ফটো কিন্তু হারিয়ে যায় না।

থেকে যায় বছরের পর বছর। আমরা চাইলে প্রোফাইলে ঢুকে আমাদের আপলোড করা ফটোগুলো দেখতে পারি। কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছ কি, আমাদের আপলোড করা এসব ফটোগুলো কোথায় জমা হয়?

কিংবা গুগল ড্রাইভে তোমরা যারা ফটো আপলোড দাও সেই ফটোগুলোই বা কোথায় জমা থাকে?

আসলে আমরা ব্যবহারকারীরা কেউই জানি না, এই ফটোগুলো কোন দেশের কম্পিউটারে জমা থাকে কিংবা কিভাবে ফটোগুলো প্রসেস করা হয়। কারণ বিভিন্ন দেশে এই সার্ভিস প্রদানকারী কোম্পানীগুলোর বিপুল সংখ্যক সার্ভার রয়েছে, যার মাধ্যমে তারা অসংখ্য ক্লায়েন্টকে এই সার্ভিস প্রদান করছে।

এছাড়া আরও এমন কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা অর্থের বিনিময়ে ইন্টারনেটে মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সার্ভিস প্রদান করে থাকে যেমন – Website registration, website hosting ইত্যাদি।

এসবই হচ্ছে ক্লাউড কম্পিউটিং(Cloud Computing) এর উদাহরণ । ক্লাউড কে তোমরা এভাবে কল্পনা করতে পারো, ধরে নাও একটা ডাটা সেন্টার যেখানে হাজার হাজার সার্ভারের মাধ্যমে ক্লায়েন্টের অজস্র সমস্যার সমাধান করা যায়।
মনে রাখবে, ক্লাউড কম্পিউটিং কোন টেকনোলজি নয়, বরং এটি একটি ব্যবসায়িক মডেল।

আমেরিকার ন্যাশনাল ইনিস্টিটিউট অব স্ট্যান্ডার্ড এন্ড টেস্টিং এর সংজ্ঞা অনুসারে,
বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার রিসোর্স যেমন – নেটওয়ার্ক , সার্ভার, স্টোরেজ, সফটওয়্যার ও সার্ভিস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রেতার সুবিধা অনুসারে, চাহিবামাত্র ও চাহিদা অনুসারে, সহজে ব্যবহার করার সুযোগ প্রদান বা ভাড়া দেয়ার সিস্টেমকে বলা হয় ক্লাউড কম্পিউটিং।


ক্লাউড কম্পিউটিং এর বৈশিষ্ট্য

ক্লাউড কম্পিউটিং এর প্রধান তিনটি বৈশিষ্ট্য নিচে দেওয়া হলোঃ




ক্লাউড কম্পিউটিং এর প্রকারভেদ

 

ক্লাউড কম্পিউটিং কে প্রধানত তিনভাগে ভাগ করা যায়ঃ




ক্লাউড কম্পিউটিং এর সার্ভিস মডেল

 

আমরা বুঝেছি যে ক্লাউড কম্পিউটিং এ ক্লায়েন্টরা বিভিন্ন সার্ভিস গ্রহণ করে এবং বিভিন্ন সার্ভিসদাতা সে সার্ভিস দেয়। এখন সার্ভিস কিরকম হবে তার উপর ভিত্তি করে তিন ধরনের মডেল তৈরী করা হয়েছে। মডেলগুলো বোঝার জন্য একটা উদাহরণ দেয়া যেতে পারে। ধরো তোমার বন্ধুর সামনে জন্মদিন। এখন তোমার বন্ধু চায় জন্মদিনের অনুষ্ঠান খুব সুন্দর হোক এবং সেই অনুষ্ঠান আয়োজনের দায়িত্ব পড়েছে তোমার ঘাড়ে।

তো তুমি কী করতে পারো?

অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য প্রথমে একটা জায়গা প্রয়োজন। হতে পারে সেটা কোন কমিউনিটি সেন্টার। তারপর প্রয়োজন ডেকোরেশন সম্পাদনের জন্য কিছু লোক। আর সবশেষে খাবার পরিবেশন করার জন্য লোক তো লাগবেই।

এখন ধরো কমিউনিটি সেন্টার কতৃপক্ষ তোমাকে তিন ধরনের প্যাকেজ দেয়। প্রথম প্যাকেজে আছে তুমি শুধু কমিউনিটি সেন্টার পাবে। বাকি কাজগুলো তোমাকে নিজেই করে নিতে হবে।

দ্বিতীয় প্যাকেজে তুমি কমিউনিটি সেন্টারের সাথে ডেকোরেশনের লোক পাবে।

আর তৃতীয় প্যাকেজে তুমি সবগুলোই পাবে।  

ক্লাউডেও কিন্তু মডেলগুলো  হচ্ছে এরকম। চলো এবার দেখে নিই মডেলগুলোঃ



উক্তিগুলোর সত্যতা নির্ণয় করো!


ক্লাউড কম্পিউটিং এর সুবিধা ও অসুবিধা