পাঠকপ্রিয় সেরা পাঁচ (কম্পিউটার, ইন্টারনেট, ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং)

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবারে শুনে নাও!

 

বই পড়তে গিয়ে তুমি যদি দুশ্চিন্তায় ভোগো কোন বইটি পড়বে, তা নিয়ে, তাহলে তোমার জন্যই আমরা বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক সর্বাধিক পাঠকপ্রিয়তা পাওয়া বইগুলো সম্পর্কে জানাতে চেষ্টা করছি। সেই চেষ্টার ধারাবাহিকতায় তোমাদের জন্য আজ থাকছে সেরা পাঁচ কম্পিউটার, ইন্টারনেট, ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং বিষয়ক বইয়ের খোঁজ:

কম্পিউটার প্রোগ্রামিং (প্রথম খন্ড)

তামিম শাহরিয়ার সুবিন

এই বইটি সম্পর্কে মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন,
“কম্পিউটারের জন্ম হয়েছিল কম্পিউট বা হিসাব করার জন্য। এখন কম্পিউটারে মানুষ গান শোনে, সিনেমা দেখে, চিঠি লেখে, ফেসবুক করে, ইন্টারনেট ঘাঁটাঘাঁটি করে এমনকি চুরিচামারি পর্যন্ত করে কিন্তু হিসাব করে না! অথচ কম্পিউটারে কম্পিউট করার মতো আনন্দ আর কিছুতে নয়, সেটি করার জন্য যেটি জানা দরকার, সেটি হচ্ছে একটুখানি প্রোগ্রামিং।

ইউনিভার্সিটিতে বা বড় বড় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রোগ্রামিং শেখানো হয় কিন্তু স্কুল-কলেজের ছেলেমেয়েরাও যে খুব সহজে প্রোগ্রামিং করতে পারে, সেটি অনেকেই জানে না। আমি অনেক দিন থেকেই ভাবছিলাম, স্কুলের ছেলেমেয়েদের জন্য এরকম একটি বই লিখি; কিন্তু কিছুতেই সময় করে উঠতে পারছিলাম না।

ঠিক এরকম সময় আমার ছাত্র সুবিনের এই পাণ্ডুলিপিটি আমার চোখে পড়েছে। আমি অবাক হয়ে লক্ষ করলাম, আমি যে জিনিসটি করতে চেয়েছিলাম সুবিন ঠিক সেটিই করে রেখেছে! স্কুল-কলেজের ছেলেমেয়েদের জন্য একটি প্রোগ্রামিংয়ের বই লিখেছে, খুব সহজ ভাষায়, খুব সুন্দর করে গুছিয়ে।

আমি তার এই চমৎকার বইটির সাফল্য কামনা করি। ছেলেমেয়েরা গান শোনা, সিনেমা দেখা, চিঠি লেখা, ফেসবুক করা, ইন্টারনেট ঘাঁটাঘাঁটি করার পাশাপাশি আবার কম্পিউটারের মূল জায়গায় ফিরে আসুক – সেই প্রত্যাশায় থাকলাম।”

বিশেষ ছাড়ে বইটি কিনতে চাইলে চলে যান এই লিংকে!

প্রোগ্রামিং কনটেস্ট ডেটা স্ট্রাকচার ও অ্যালগরিদম

মো: মাহবুবুল হাসান

জনশ্রুতি রয়েছে যে লেখক তার বিয়ের দিনও বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করেছেন। কাজেই এত দীর্ঘ ক্যারিয়ার ও সময়ে তিনি কী পরিমাণ সমস্যা সমাধান করেছেন তা আন্দাজ করাও অনেকের পক্ষে কঠিন হবে। এই বইয়ে তাই নানা ধরনের সমস্যা সমাধান এর কথা উঠে এসেছে। বাংলা ভাষায় এমন বই আগে প্রকাশিত হয়নি এমনকি ইংরেজিতে অনুদিত হলেও এই বই যথেষ্ট সমাদৃত হবার কথা।

সাধারণত দেশের বাইরে গিয়ে লোকজন প্রোগ্রামিং কনটেস্ট এবং প্রবলেমসেটিং-কে ভুলে যায়, কিন্তু লেখক এই দিক থেকে ব্যতিক্রম। মনে রাখতে হবে যে পোশাক ও শ্রমিক রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হলেও সম্মানের জন্য প্রয়োজন একটু সৃজনশীল কিছু। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI) ও রোবটের উত্থানের যুগে, প্রোগ্রামিং ছাড়া অন্য কিছুতে মানুষের প্রয়োজন থাকবে কিনা সেটাও ভাবা দরকার।

বিশেষ ছাড়ে বইটি কিনতে চাইলে চলে যান এই লিংকে!

পাইথন পরিচিতি

তামিম শাহরিয়ার সুবিন

পাইথন অত্যন্ত শক্তিশালী, আধুনিক, সহজে বোধগম্য ও পরিচ্ছন্ন একটি প্রোগ্রামিং ভাষা। ওয়েব প্রোগ্রামিংয়ে পাইথন বেশ জনপ্রিয়। ডাটা সায়েন্সেও এর ব্যবহার বাড়ছে দিন দিন। উন্নত দেশগুলোতে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় প্রোগ্রামিংয়ের কাজে পাইথন যেমন ব্যবহৃত হচ্ছে, তেমনি প্রোগ্রামিং শেখার জন্যও পাইথন ব্যবহার করা হচ্ছে।

বাংলাদেশও পিছিয়ে থাকবে না। এই বইটি পাঠকদের পাইথন নামক চমৎকার প্রোগ্রামিং ভাষার সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার দায়িত্বটি ভালোভাবেই পালন করবে। যারা মোটামুটি প্রোগ্রামিং পারে কিন্তু পাইথন ভাষায় কখনো কোড করে নি, এই বই তাদের জন্য উপযোগী।

বিশেষ ছাড়ে বইটি কিনতে চাইলে চলে যান এই লিংকে!

আউটসোর্সিং : শুরুটা যেভাবে এবং শুরু করার পর

মো. আমিনুর রহমান

আউটসোর্সিং শব্দটি হয়তো শুনেছেন। আউটসোর্সিং করে অনেকে লাখ লাখ টাকা আয় করে এ কথাও হয়তো শুনেছেন। কিন্তু বিষয়টি কী, কীভাবে, কী করতে হয় এসব কিছুই জানেন না। এ বিষয়ে অভিজ্ঞ কারও কাছে জিজ্ঞেস করলেন, ‘ভাই, আউটসোর্সিং কী জিনিস? এর মাধ্যমে নাকি মাসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করা যায়?’ আপনার সে ভাই উত্তর দিলেন, ‘কেউ কেউ এর চেয়েও বেশি ইনকাম করেন। আপনি কম্পিউটারের কী কী জানেন?’

আপনি উত্তর দিলেন, ‘আমি তেমন কিছুই জানি না। এমএস ওয়ার্ড জানি, ফেসবুকে আমার একটা অ্যাকাউন্ট আছে, কম্পিউটারের প্রাথমিক জ্ঞান আছে এই আর কি!’ আপনার সে ভাই জানালেন, ‘আপনি কি মনে করেছেন ডলার ইনকাম করা এতোই সোজা? এখানে সারা বিশ্বের প্রোগ্রামারদের সাথে কম্পিটিশন দিয়ে জবে বিড করে কাজ পেতে হয়। আপনি যতটা সহজ ভাবছেন ততটা সহজ না।’

এ কথা শুনে আউটসোর্সিংয়ের প্রতি আপনার আগ্রহই নষ্ট হয়ে গেল, স্বপ্নটাও মরে গেল। আপনার ওই ভাই যদিও সত্যি কথাই বলেছেন তবু আপনার প্রশ্নের উত্তর এমনও হতে পারত, ‘আপনি কোনো আউটসোর্সিং সাইটে অ্যাকাউন্ট খুলে দেখতে পারেন। ওখানে ফেসবুকের বেশ কিছু কাজ পাওয়া যায়। যেমন ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়া, ফেসবুকের ফ্যান পেইজে লাইক সংগ্রহ করে দেওয়া, ডেটা এন্ট্রিরও অনেক কাজ আছে। আপনি অল্প রেটে আবেদন করলে সহজেই কাজ পেয়ে যেতে পারেন। আপনি হয়তো শুরুতে বেশি ইনকাম করতে পারবেন না, তবে চেষ্টা চালিয়ে গেলে ধীরে ধীরে আপনার ইনকাম বাড়বে। তখন আপনি নিজেই বুঝে যাবেন কীভাবে, কী করতে হবে?’ এ ধরনের উত্তর শুনে আপনি অনেক উৎসাহিত হবেন।

বিশেষ ছাড়ে বইটি কিনতে চাইলে চলে যান এই লিংকে!

জাভা প্রোগ্রামিং

আ ন ম বজলুর রহমান

তৃতীয় দশকে পদার্পণ করেছে জাভা। ১৯৯৫ সালে যাত্রা শুরু করে গত ২২ বছরে ক্রমাগত উন্নতি, প্রসার ও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে অত্যন্ত জনপ্রিয় এই প্রোগ্রামিং ভাষা। মিথষ্ক্রিয় ইন্টারনেট তৈরিতে নেতৃত্বদান ছাড়াও অন্য ইন্টারনেট প্রোগ্রামিংয়ের ভাষাগুলোকেও ক্রমাগত চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে জাভা। এতে ইন্টারনেট প্রোগ্রামিং ভাষাগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হয়েছে; ফলে জাভাসহ প্রতিটি ভাষার কম্পাইলারেই সন্নিবেশিত হয়েছে বিভিন্ন প্রযুক্তি, লাইব্রেরি, ফ্রেমওয়ার্ক ইত্যাদি। গত দু’দশক ধরে প্রকৌশল-বান্ধব প্রযুক্তি উন্নয়নেও নেতৃত্ব দিয়েছে জাভা, তাই আজও ওয়েব প্রোগ্রামিং বা ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে ডেভেলপারের প্রথম পছন্দের ভাষা জাভা।

বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ের ভাষা হিসেবে সি এর পাশাপাশি জাভা শিক্ষণের শুরু অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং শিক্ষার সাথে সাথেই। সে হিসেবে জাভা-শিক্ষণেও প্রায় দু’দশকের অভিজ্ঞতা অতিক্রম করেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। বাংলাদেশের বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং শিক্ষার প্রধান ভাষা হিসেবে জাভা গৃহীত হয়েছে এমনটা বললেও অত্যুক্তি হবে না।

এমনকি দুয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম প্রোগ্রামিং ভাষা হিসেবেও জাভা শিক্ষাদান করে। শিক্ষাদানের এই অভিজ্ঞতা অনেক ক্ষেত্রেই ফলপ্রসু প্রমাণিত হলেও সব ক্ষেত্রেই সফল হয়েছে, এমনটি ভাবার অবকাশ নেই। অনেক ক্ষেত্রেই কম্পিউটার বিদ্যার ছাত্র বা তথ্য প্রযুক্তি খাতে কর্মসংস্থান প্রত্যাশী স্নাতকদের মধ্যেও অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং ও জাভা বিষয়ে কর্মোপযোগী জ্ঞানের অভাব দেখা যায়। বৃহৎ পরিসরে এই বিষয় দুটোর শিক্ষাদান ও শিখনে উৎকর্ষ অর্জনের পথে বাংলা ভাষায় উৎকৃষ্ট মানের গ্রন্থ সহ অন্যান্য শিক্ষা-উপকরণের অভাব একটি উল্লেখযোগ্য বাঁধা বলা যেতে পারে।

আর এই বাধা জয় করতে সহায়ক হবে এই বইটি।

বিশেষ ছাড়ে বইটি কিনতে চাইলে চলে যান এই লিংকে!

৫টি বই একইসাথে এক লিস্ট থেকে কিনতে চাইলে ঘুরে এসো এই লিংকটি থেকে!

এই লেখাটির অডিওবুকটি পড়েছে মনিরা আক্তার লাবনী।

What are you thinking?