পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার: মনের রোগে বিশৃঙখল চারপাশ (পর্ব ১)

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবার শুনে নাও।

রাস্তা দিয়ে হাঁটছেন, কিন্তু আপনার কাছে মনে হচ্ছে কেউ একজন আপনাকে অনুসরণ করছে। কিংবা অফিসে বসের সামনে দাঁড়ালেই আপনার হাত পা ঘেমে যাচ্ছে, কথা বলতে পারছেন না। কিংবা অনেক মানুষের মাঝে বসে থেকেও মনে হচ্ছে জায়গাটিতে শুধু আপনি একাই বসে আছেন। আমাদের চারপাশে এমন হাজারো মানুষ আছে যারা প্রতিনিয়ত এসব সমস্যায় ভুগেন কিন্তু দিন শেষে এসব সমস্যার কোনো ব্যাখ্যা বা সমাধান খুঁজে পান না। এই সমস্যাটিকে বিশেষজ্ঞরা নাম দিয়েছেন ‘পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার’। ‘পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার’ বা ব্যক্তিত্বের বিশৃঙ্খলা একটি মনের রোগ। এই রোগে যারা ভোগেন তাদের চিন্তার ধরণ একটু অস্বাভাবিক হয়। এরা অসুস্থ প্রকৃতির, এদের ব্যবহার এবং অনুভূতিও অসুস্থ থাকে। কিন্তু এরা প্রতিনিয়ত-ই আমাদের আশেপাশে ঘুরে বেড়ান সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের মত। এই অসুস্থ অনুভূতি বা ব্যবহার আবার বিভিন্ন সমাজের মানুষের বিভিন্ন রকমের হয়। পারসোনালিটি ডিসঅর্ডারে ভুগছেন, এমন ব্যক্তিদের জগতটা ভিন্ন। তাদের ভাবনা জগত আশেপাশের লোকের চেয়ে আলাদা। ফলে তারা সামাজিক, পারিবারিক বা অন্যান্য কর্মকাণ্ডে ভালোভাবে সম্পৃক্ত হতে পারেন না। কথায় কথায় অন্যকে দোষারোপ করার প্রবণতাও থাকে তাদের।

পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার শব্দটি খুবই নতুন এবং গত শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে এই শব্দের ব্যবহার শুরু হয়। কিন্তু অনেক আগে থেকেই এই সমস্যা বা রোগটি নিয়ে মানুষ গবেষণা করে আসছে। শারীরতত্ত্ববিদ JC Prichard ১৮৩৫ সালে ব্যক্তিত্ত্বের এই সমস্যাকে “moral insanity” বলে অভিহিত করেন। এরপর মনোরোগবিদ Emil Kraepelin ১৮৯৬ সালে “psychopathic personality” শব্দটি ব্যবহার করেন। তিনি ব্যক্তিত্ত্বের কয়েকটি ধরণ উল্লেখ করেন যা পরবর্তীকালে ১৯২৩ সালে একটি আমেরিকান জার্নালে Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders 5th Revision (DSM-5) নামক শিরোনামে প্রকাশিত হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, পৃথিবীতে মোট জনসংখ্যার ১০ থেকে ২০ শতাংশের মধ্যে ব্যক্তিত্বের সমস্যা বা ‘পারসোনালিটি ডিজঅর্ডার’ রয়েছে।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে! The 10-Minute Blog!

ব্যক্তিত্বের সমস্যাগুলোকে প্রথমত তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়। এগুলোকে বলা হয় ‘ক্লাস্টার’। ক্লাস্টার ‘এ’ তে রয়েছে-  প্যারানয়েড, সিজয়েড ও সিজোটাইপাল ধরনের ব্যক্তিত্বের সমস্যা। ক্লাস্টার ‘বি’ তে রয়েছে-  অ্যান্টিসোশ্যাল, বর্ডারলাইন, হিস্ট্রিয়োনিক ও নার্সিসিস্টিক ধরনের ব্যক্তিত্বের সমস্যা এবং ক্লাস্টার ‘সি’ তে আছে- অবসেসিভ-কমপালসিভ, এভয়ডেন্ট ও ডিপেনডেন্ট ধরনের ব্যক্তিত্বের সমস্যা। ব্যক্তিত্বের এই  সমস্যাগুলোর যেমন বিভিন্ন ক্যাটাগরি আছে তেমনি সমাধানেরও উপায় আছে।

প্যারানয়েড পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এরা সাধারণত অহেতুক সন্দেহপ্রবণ, সহজে কাউকে বিশ্বাস করতে চায় না, পরশ্রীকাতর, অনুভূতিপ্রবণ, প্রায়ই বিরক্ত-অসন্তুষ্ট থাকে। এরা নিজেকে সব সময় অন্যদের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে করে এবং প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে থাকে। এই পারসোনালিটি ডিসঅর্ডারের ভুক্তভোগীরা অন্যদের সাহচর্য এড়ানোর চেষ্টা করে। এটি সাধারণত নারীর তুলনায় পুরুষের মধ্যে বেশি দেখা যায়।

ঘুরে আসুন: সফলদের স্বপ্নগাঁথাঃ সুন্দর পিচাই যেভাবে গুগলের CEO হলেন


সিজয়েড পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এদের আবেগ থাকে কম, একা থাকতে পছন্দ করে, আনন্দের অনুভূতি কম থাকে, তবে এদের অন্তর্দৃষ্টি অন্যদের চেয়ে বেশি থাকে। এরা খুব কম সময়ই ধারণা করে তাদের সমস্যা আছে। নিজেদের নিয়ে সব সময় খুব কনফিডেন্ট থাকে। কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে অন্যের হস্তক্ষেপ পছন্দ করেনা। সামাজিক ও পারিবারিক সম্পর্কের ব্যাপারে সবসময় উদাসীন থাকে।


সিজোটাইপাল পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এ ধরনের ব্যক্তিত্বের মানুষ সামাজিকতা এড়িয়ে চলে, সামাজিক উদ্বিগ্নতায় ভোগে। অনেক সময় এরা মনে করে, এরা অন্যদের মনের কথা বুঝতে পারে। মাঝেমধ্যে মনে করে, অন্যরা সব সময় তাকে নিয়ে সমালোচনা করছে। তাদের কথোপকথনে অসামঞ্জস্যতা থাকতে পারে। নিজেদের অন্যের সামনে উপস্থাপন করার সময় এরা প্রায় সময়ই উপযুক্ত শব্দ খুঁজে পান না। এরা বেশ আত্মকেন্দ্রিক হয়ে থাকে।


অ্যান্টিসোশ্যাল পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এই ডিসঅর্ডার সাধারণত আঠারো বছরের আগে হয় না। এই ডিসঅর্ডারের দরুণ মানুষের আচরণ হয় নির্মম। অন্যের প্রতি এদের কোনো অনুভূতি থাকে না। এরা দায়িত্বজ্ঞানহীন হয়, হঠাত করে রেগে যায়, মেজাজ হয় খিটখিটে। অপরাধ করলেও এদের মধ্যে কোনো অপরাধবোধ বা অনুতাপ থাকে না এবং এরা পারিবারিক ও সামাজিক দায়িত্ব এড়িয়ে চলতে পছন্দ করে। ছোট থেকে বড় নানা ধরনের অপরাধের সঙ্গে এরা জড়িয়ে যেতে থাকে অনবরত।

উদ্যোগ নাও উদ্যোক্তা হবার!

তোমরা যারা উদ্যোক্তা হতে চাও তাদের কিন্তু কিছু প্রাথমিক বিষয় অবশ্যই জানা থাকা চাই!

তাই আর দেরি না করে ঘুরে এসো ১০ মিনিট স্কুলের এই দারুণ প্লে-লিস্ট টি থেকে!

১০ মিনিট স্কুলের Startup and Entrepreneurship সিরিজ



বর্ডারলাইন পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এরা অস্তিত্বের সংকটে ভোগে, কারও সঙ্গে দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক বজায় রাখতে পারে না। এদের আবেগের বহিঃপ্রকাশ কেমন হবে, তা আগে থেকে ধারণা করা যায় না। এরা হঠকারী আচরণ করে, নিজের ক্ষতি নিজে করে ফেলতে পারে এবং হাত-পা ধারালো অস্ত্র বা ব্লেড দিয়ে কাটে, দেয়ালে মাথা ঠুকে ইত্যাদি। খারাপ কোনো ঘটনা ঘটলে সেজন্য নিজেকে দায়ী করে।


হিস্ট্রিয়োনিক পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

অন্যকে প্রভাবিত করার একটি দারুণ ক্ষমতা এদের আছে; সেটি ইতিবাচক বা নেতিবাচক উভয় ক্ষেত্রেই হতে পারে। তবে এ ধরনের মানুষের অনুভূতিগুলো খুব একটা গভীর নয়। শারীরিক সৌন্দর্যকে এরা বেশি গুরুত্ব দেয়। অন্যের মনোযোগ পেতে এরা ভালোবাসে। খুব সহজেই অন্যের দ্বারা প্রভাবিত হয়। যে কোনো আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে নিজেকে রাখার জন্য এরা যেকোনো কিছু করতে পারে।


নার্সিসিস্টিক পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে, গ্রিক দেবী নার্সিসিসের মতো এরা নিজেকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। নিজেকে এরা অনেক বড় মনে করে এবং অন্যদের চেয়ে আলাদা ভাবে। নিজেদের ক্ষমতা সম্পর্কে এরা অনেক উচ্চ ধারণা পোষণ করে। এরা অন্যের প্রশংসা চায়। কিছুটা স্বার্থপর ও হিংসুটে স্বভাবের হয়ে থাকে। অন্যের মতামতের মূল্য এদের কাছে কম। নার্সিসিজম এখনকার জেনারেশনের মাঝে খুবই কমন একটা ব্যাপার, কিন্তু তারপরেও এটি কিন্তু একটি পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার!

ঘুরে আসুন:  সফলদের স্বপ্নগাঁথাঃ সত্য নাদেলা যেভাবে মাইক্রোসফটের CEO হলেন


এভয়ডেন্ট পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

এরা সব সময় টেনশনে ভোগে। সমাজের অন্যদের চেয়ে এরা নিজেকে ছোট মনে করে। হীনমন্যতা থাকে এদের মধ্যে। সব সময় ভাবে, অন্যরা তাদের প্রত্যাখ্যান করবে। সামাজিক কর্মকাণ্ডে এরা সাধারণত নিজেকে যুক্ত করে না এবং যেকোন নতুন কাজে যুক্ত হবার ঝুঁকি নিতে ভয় পায়। অনেকের মধ্যে থাকলেও এরা নিজেদের একা ভাবে। নিজের দায়িত্ব নিতে এরা সব সময় ভয় পায়।

এখন পড়াশোনা হবে আরো সহজে, স্মার্টবুকের সাহায্যে। কারণ স্মার্ট তোমার জন্যে প্রয়োজন স্মার্টবুক! আমাদের স্মার্টবুকগুলো!


অবসেসিভ-কম্পালসিভ পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার:

নিয়মনীতি কঠোরভাবে মেনে চলতে চায় এ ধরনের ব্যক্তিত্বের সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা। সবকিছুর মধ্যে পারফেকশন খুঁজে বেড়ায় এবং স্বভাবটা হয়ে যায় খুঁতখুঁতে। এরা অপেক্ষাকৃত দৃঢ়চেতা হয়, বেশি কাজ করতে পছন্দ করে। সতর্ক থাকা অন্যকে সন্দেহ করা এদের আরেক বৈশিষ্ট্য। সে চায় অন্যেরা তার নির্দেশনা অনুযায়ী চলুক। নিজের চিন্তাভাবনা ও যুক্তি সঠিক না হলেও তাতে অটল থাকে। নিজের এবং অন্যদের জন্য কাল্পনিক ও অপূরণযোগ্য নীতি ও সময়সীমা নির্ধারণ করে।

উপরের এই পারসোনালিটি ডিসঅর্ডারগুলো পড়ে নির্ধারণ করুন তো আপনার মধ্যে কোন ডিসঅর্ডারটি আছে?


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com


লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?