রাজহাঁসের জীবন থেকেও জানার আছে অনেক কিছু!

পুরোটা পড়ার সময় নেই ? ব্লগটি একবার শুনে নাও !

প্রত্যেক শরৎকালে কানাডা থেকে হাজারখানেক রাজহাঁস নিজেদের তীব্র শীত থেকে রক্ষা করার জন্য সাময়িকভাবে আমেরিকার দক্ষিণ দিকে উড়ে চলে চলে যায়। উড়ে যাওয়ার সময় রাজহাঁস গুলো একত্রে একটা V আকৃতি ধারণ করে যেখানে মাঝখানে থাকে একটা নেতা রাজহাঁস এবং দু’পাশে লাইন ধরে তাকে বাকি সব রাজহাঁস অনুসরণ করতে থাকে।

বন্যপ্রানী বিশেষজ্ঞরা অনেক গবেষণা করেছেন তাদের এই V আকৃতিতে উড়ার রহস্য উদ্ঘাটনে এবং তারা এই গবেষণার মাধ্যমে পেয়েছেন কিছু চমকপ্রদ তথ্য যার থেকে আমাদের সকলেরই অনেক কিছু শেখার আছে। চলুন তথ্যগুলো সম্পর্কে জানা যাক।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে আমরা প্রায়ই দ্বিধায় পড়ে যাই- সিজিপিএ ঠিক রাখবো, নাকি নিজের জন্যে কিছু অর্থোপার্জন করবো। এই দ্বিধা থেকে মুক্তির জন্যে ঝটপট ঘুরে এসো ১০ মিনিট স্কুলের এই এক্সক্লুসিভ প্লে-লিস্ট থেকে!

১। ওড়ার সময় রাজহাঁস একে অপরের আশেপাশের বাতাসের বাধা প্রদানের ক্ষমতাকে কমিয়ে দেয়

এই ব্যাপারটা গ্রুপ স্টাডিজ করার অভ্যাস যাদের আছে তারা ভাল বুঝবে। আমরা যখন পরীক্ষার আগ মুহূর্তে একা একা কোনো বিষয় পড়তে থাকি তখন পড়ার চাপটাকে হঠাৎ করেই অনেক বেশি মনে হয়। অথচ সেই একই বিষয় গ্রুপে গিয়ে পড়লে অনেক সহজ হয়ে যায় কেননা গ্রুপে যখন সবাই একসাথে একটা সমস্যা সমাধান করতে যাই তখন সবার চেষ্টায় সেই সমস্যাটা অনেক সহজ হয়ে যায়।

একইভাবে কর্পোরেট জগতেও কাজের চাপ কমানোর জন্য বেশিরভাগ সময় একা কাজ না করে দলগত কাজ করা হয়। এতে করে একজনের উপর চাপ পড়ে না, আবার সবাই একসাথে কাজ করলে সবার কর্মক্ষমতা একত্রিত হয়, তার ফলাফলটা দারুন হয়! রাজহাঁসরাও এই ব্যাপারটাই অনুসরণ করে একসাথে উড়ে যায় এবং একা উড়লে একই সময়, একই শক্তি ব্যয় করে, একটা রাজহাঁস যেটুক পথ পারি দিতো তার থেকে ৭০% বেশি পথ তারা একসাথে উড়ে পারি দেয়।  

২। একটা রাজহাঁস যখন দলচ্যুত হয়ে যায়, তখন সে তাৎক্ষণিকভাবে ধরে ফেলে তার সমস্যাটা কোথায় আর সে সাথে সাথে তা শুধরে ফেলে

একটা ফ্রেন্ড সার্কেলের দিনের পর দিন একসাথে গ্রুপ স্টাডির পরও যখন একজন সবার তুলনায় খারাপ ফলাফল করে ফেলে, তখন সেই মুহূর্তেই সে ধরার চেষ্টা করে যে তার ভুলটা আসলে কোথায় ছিল আর তা শুধরানোর চেষ্টা করে যাতে করে পরবর্তীতে তার অন্যান্য বন্ধু-বান্ধবের সাথে তার ফলাফলের সামঞ্জস্যতা থাকে।

ঠিক একইভাবে V আকৃতির সেই দল থেকে একটা রাজহাঁস যখনই দলচ্যুত হয়ে যায়, তখনই সে আরো বেশি চেষ্টা করে, আরো বেশি শক্তি দিয়ে তার দলের সাথে একত্রিত হয়ে যায়।

হয়ে যাও দক্ষ ভিডিও এডিটর!

কোন ভিডিওকে নিজের পছন্দমত এডিট করার জন্যে অনেক মজার এবং সবচাইতে জনপ্রিয় একটা সফটওয়্যার প্রিমিয়ার প্রো।

প্রিমিয়ার প্রো-এর সাহায্যে ভিডিও এডিটিং শিখতে এক্ষুনি চলে যাও ১০ মিনিট স্কুলের এই প্লে-লিস্টটিতে ?

১০ মিনিট স্কুলের পাওয়ার পয়েন্ট সিরিজ

৩। রাজহাঁসরা নেতা পরিবর্তন করে

যেমনটা শুরুতে বলেছিলাম, রাজহাঁসরা ওড়ার সময় একে অপরের আশেপাশের বায়ুর বাধা দেয়ার ক্ষমতা হ্রাস করে, সে হিসেবে ঐ V আকৃতির দলটার নেতৃত্ব দেয়া হাঁসটার বাতাসের বাধা দেয়ার ক্ষমতা  সবচেয়ে বেশি হ্রাস করতে হয়। সেই মূলত বাতাসের বাঁধ ভেঙ্গে দলটাকে এগিয়ে নিয়ে যায় যা নির্দ্বিধায় বাতাসের চাপের তুলনায় নিতান্তই ছোট্ট ঐ পাখির জন্য অনেক পরিশ্রমের।

রাজহাঁসরা একসাথে উড়ার সময় একজন আরেকজনকে ডাকতে থাকে

তাই দলের নেতা যখনই ক্লান্ত হয়ে যায়, তখন তার জায়গাটা আরেকটা হাঁস নিয়ে সে তখন দলটিকে নেতৃত্ব দিয়ে নিয়ে যায়। তাদের সম্পূর্ণ যাত্রায় এই প্রক্রিয়াটা অনেকবার সম্পন্ন হয়। এভাবে রাজহাঁসরা একজনের উপর কখনো সম্পূর্ণ চাপসৃষ্টি করে না এবং সবাই নেতৃত্ব দেয়ার সুযোগ পায়।

৪। রাজহাঁসরা যাত্রাকালে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে থাকে

বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে কর্পোরেট লেভেল পর্যন্ত সব জায়গায় দলগত কাজের সময় অনেক সময়ই দেখা যায় যে অনেক অভিজ্ঞ এবং দক্ষ টিমমেট থাকা সত্ত্বেও কাজটা ঠিকমত শেষ হয় না কিংবা কাজটার ফলাফল ভাল হয় না।

এর পেছনে সবচেয়ে বড় কারণটা হচ্ছে, সঠিক যোগাযোগের অভাব। রাজহাঁসরা একসাথে উড়ার সময় একজন আরেকজনকে ডাকতে থাকে এবং গবেষণায় দেখা গেছে, এর মাধ্যমেই তারা একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে থাকে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশান ইত্যাদি স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য 10 Minute School Skill Development Lab নামে ১০ মিনিট স্কুলের রয়েছে একটি ফেইসবুক গ্রুপ।

৫। রাজহাঁসরা পরষ্পরকে সাহায্য করে

গবেষণায় আরো দেখা গেছে যে, দলের একটা হাঁস যখন আহত হয়, উড়তে গিয়ে কিংবা শিকারির গুলিতে, তখন দল থেকে আরো কিছু হাঁস দিয়ে তাকে উড়তে সাহায্য করে এবং তাকে একা না ফেলে তার সাথেই থেকে যায়।

আমাদের মানবজাতিতে একটা সমস্যা হচ্ছে, আমরা সহযোগিতা না বরং প্রতিযোগিতায় বিশ্বাস করি। পাশের জনের হাত ধরে না এগিয়ে তাকে কনুই দিয়ে পিছে ঠেলে দিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়াটাকেই আমরা সার্থকতা মনে করি।

“বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর, সবার আমি ছাত্র, নানান ভাবে নতুন জিনিস শিখছি দিবারাত্র।”

– সুনির্মল বসু

পুরো পৃথিবীটাই যেন আমাদের জন্য এক শিক্ষাক্ষেত্র, সবকিছুর থেকেই আমাদের কিছু না কিছু শেখার আছেই। হোক না তা সামান্য রাজহাঁস!


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?