বিজি লাইফকে ইজি করতে গুগল- পর্ব ৩

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবারে শুনে নাও!

গুগল ফন্ট:

বিনামূল্যে আকর্ষণীয় ফন্ট খুঁজে পাওয়া যাবে গুগল ফন্ট থেকে। গুগল ফন্ট ওয়েবসাইট ডিজাইনারদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি নাম। ২০১০ সালে গুগলের এই গুগল ওয়েব ফন্ট সার্ভিসটি চালু হয়। এটি গুগলের একটি অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রামিং ইন্টারফেস। যার মানে, ইউজাররা এখানকার যেকোনো ফন্ট তাদের ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে পারে। গুগল ফন্ট ওয়েবসাইটে অ্যাড করার অনেক সুবিধা রয়েছে।

google.com/fonts

গুগল অ্যাডসেন্স:

গুগল অ্যডসেন্স গুগলের একটি বিজ্ঞাপন সার্ভিস। গুগল এখানে ওয়েবসাইটের ধরন অনুযায়ী নানারকম বিজ্ঞাপন ওয়েবসাইট পাবলিশারদের তাদের ওয়েবসাইটে দেখানোর সুযোগ দেয়; যার বিনিময়ে মাস শেষে পাবলিশাররা টাকা পায়। কী পরিমাণ ভিজিটর ওয়েবসাইট ভিজিট করল এবং কতজন অ্যাডে ক্লিক করল, তার ওপর গুগল পাবলিশারদের টাকা দিয়ে থাকে।

https://www.google.com/adsense/start/#/?modal_active=none

গুগল ওয়েবমাস্টার টুল:

ওয়েবসাইট অ্যাডমিনদের জন্য ওয়েবমাস্টার টুলটি খুবই কাজের এবং উপকারী একটি টুল। একটি ওয়েবসাইটের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পর্কে এই গুগল ওয়েবমাস্টারটুল থেকে জানা যায়। গুগল ওয়েবমাস্টারটুলে একটি ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ অ্যাড করে, গুগল সার্চ রোবটের কাছে ওয়েবসাইটিকে আরো ভালোভাবে উপস্হাপন করানো যায়।

গুগল সিলেক্ট টু স্পিক (অ্যান্ড্রয়েড):

গুগলের এই ফিচারটি অনেক মজার। ফিচারটি ইংরেজি টেক্সট খুবই নিখুঁতভাবে পড়ে শোনাবে। যদিও বাংলা সিলেক্ট টু স্পিক বেটা পর্যায়ে রয়েছে তবুও বাংলা টেক্সটকে এটি অনেক সাবলীলভাবে পড়ে শোনাতে পারে।ফিচারটি আপনার ফোনে আনতে আপনাকে সেটিংস-এর এক্সেসবিলিটি থেকে সিলেক্ট টু স্পীক-কে এনেবলড করে দিতে হবেপ্রায় সকল অ্যান্ড্রয়েড ফোনে বিল্টইন অবস্থায় রয়েছে এই সেবা। এখানে আপনি যদি কোন টেক্সটকে সিলেক্ট করেন, তবে গুগল আপনাকে সেটি পড়ে শোনাবে।

গুগল ট্রান্সলেটর:

কোনো শব্দ বা বাক্য অনুবাদ করার জন্য গুগলের বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় সেবা হচ্ছে গুগল ট্রান্সলেট অ্যাপ। যদিও এর জন্য ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন। একশ’রও বেশি ভাষায় শব্দ বা বাক্যে অনুবাদ করা যাবে অ্যাপটির মাধ্যমে।

এছাড়াও গুগল ট্রান্সলেট অ্যাপে যুক্ত করা হয়েছে কনভার্সেশন মোড ফিচার। এই ফিচারের আওতায় অন্য ভাষার মানুষের সঙ্গে নিজস্ব ভাষায় কথোপকথন করা যাবে। উদাহারণস্বরুপ, আপনি ইংরেজি ভাষার কারও সঙ্গে বাংলায় কথা বললে তিনি তা ইংরেজি ভাষায় শুনতে পাবেন। এখন পর্যন্ত ২৭ টি ভাষার জন্য এ সুবিধাটি ব্যবহার করা যায়।

ইন্টারনেট ছাড়াই অর্থাৎ অফলাইনে অনুবাদ সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে কাঙ্ক্ষিত ভাষার প্যাকটি ইন্টারনেট থাকা অবস্থায় ট্রান্সলেট অ্যাপ থেকে ডাউনলোড করে রাখতে হবে। ভিজ্যুয়াল ট্রান্সলেশন সুবিধার ক্ষেত্রেও এই অ্যাপ কাজ করে। ইংরেজি লেখা রয়েছে এমন কোনো কিছুর ছবি তুললে (যেমন রাস্তার সাইনবোর্ড) তা বাংলা, গুজরাটি, কন্নড়, মারাঠি, তামিল, তেলেগু ও উর্দু ভাষার মধ্যে কাঙ্ক্ষিত যেকোনো ভাষায় দেখা যাবে। ৩৭ টি ভাষার জন্য এই সুবিধাটি প্রযোজ্য।

এই লেখাটির অডিওবুকটি পড়েছে সাকলাইন মোরশেদ


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?