ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার FAQ!

পুরোটা পড়ার সময় নেই ? ব্লগটি একবার শুনে নাও !

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় অনুষদ। সারাদেশের আনাচে কানাচের হাজার হাজার ব্যবসায় শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থীর জন্য যেন এক স্বপ্নের নাম! আর এখানে অধ্যয়নের সুযোগ যাতে কোনোভাবেই হাতছাড়া হয়ে না যায় সে কারণে সকল শিক্ষার্থীরই ইচ্ছা থাকে এর ভর্তি পরীক্ষা সম্পর্কে একটা পরিপূর্ণ ধারণা লাভের। তার জন্যই ভর্তি পরীক্ষার মৌসুম শুরু হতে না হতেই সবাই তাদের প্রশ্নভাণ্ডার নিয়ে হাজির হয়ে যায় ইতোমধ্যে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের কাছে। সেরকমই কিছু প্রশ্নের উত্তর তোমরা পেয়ে যাবে এই লেখাটায়।

১। দৈনিক কতক্ষণ পড়তে হবে? কীভাবে পড়তে হবে?  

দৈনিক কতক্ষণ পড়তে হবে তা সম্পূর্ণভাবে তোমার ধারণক্ষমতার উপর নির্ভর করেতবে এইটুকু বলব যে, যতক্ষণই পড় না কেন, মনোযোগ সহকারে পড়। যখন পড়তে একদমই ইচ্ছা করছে না, তখন বিরতি নাও নাহলে প্রেশারে আগের পড়াও ভুলে যাবে।

পড়াশোনাটা নিয়মিত চালিয়ে যাও এবং রাত জেগে না পড়ে বরং ভোরবেলা উঠে পড়। কারণ, রাত জেগে পড়লে মাথায় সারাদিনের সব চিন্তা ভীড় করে যেখানে ভোরবেলা পড়তে গেলে মাথা পুরোপুরি পরিষ্কার থাকে এবং পড়া সহজে মনে থাকে। প্রতিদিনই কিছু কিছু ভোকাবুলারি অথবা প্রিপজিশন পড়ে ফেলা ভাল।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

২। এত ভোকাবুলারি মনে রাখব কীভাবে?  

ভোকাবুলারি মনে রাখার বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে। এর মাঝেই প্রথমেই নেমোনিক। নেমোনিক হচ্ছে একটা জিনিস দিয়ে অন্য আরেকটা জিনিস মনে রাখা। ভোকাবুলারিগুলো পড়ার সময় প্রত্যেকটা শব্দকে অন্যকিছুর সাথে রিলেট করতে পারলেই ব্যপারটা অনেক সহজ হয়ে যাবে।

admission tips, commerece background, Dhaka University

এছাড়াও স্টিকিনোটের ব্যবহার করা যায়। ফ্রিজে, বাথরুমে, ড্রেসিং টেবিলে এমন বিভিন্ন জায়গায় স্টিকি নোটে কিছু কিছু ভোকাবুলারি লিখে আটকিয়ে রাখলে তা বারবার চোখে পড়ে মাথায় গেঁথে যাবে। প্রত্যেকটা শব্দ পড়ার সাথে সাথে লিখে ফেললেও ভাল মনে রাখা যায়। প্রতি রাতে ঘুমোতে যাবার আগে অন্তত দশটা করে পড়ে পরদিন সকালে উঠে ওগুলো মনে করার চেষ্টা করবে।  

৩। কোন বিষয়টাতে সবচেয়ে বেশি জোর দিতে হবে?  

সব বিষয়ই সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। যেহেতু ইংরেজিতে আলাদাভাবে পাসমার্ক তুলতে হয় তাই ইংরেজিতে একটু জোর দেয়া ভাল। এখানে বলে রাখা ভাল যে, পরীক্ষা হলে ইংরেজি অংশটা একদম শেষে উত্তর করার ব্যাপারটা যতটা সম্ভব এড়িয়ে যাওয়া উচিৎ। কারণ, কোনোভাবে যদি সময় শেষ হয়ে যায় আর ইংরেজি থেকে নম্বর ছেড়ে আসতে হয় তাহলে পাস করাটা অনেক কঠিন হয়ে যাবে।

৪। উচ্চমাধ্যমিকে মার্কেটিং পড়লে কি ফিন্যান্সের উত্তর করা যাবে? এতে করে কি ভবিষ্যতে বিষয় নির্বাচন প্রভাবিত হবে?

You’re free to answer either Finance or marketing! আর এই ব্যাপারটা চান্স পাওয়ার পর বিষয় নির্বাচনে কোনো প্রভাব ফেলবে না।

৫। নেগেটিভ মার্কিং হয়। সেক্ষেত্রে কি ১২০ নম্বরেরই উত্তর করে আসা বুদ্ধিমানের মত কাজ?

Negative marking is not negative at all! প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য .২৪ করে তোমার মোট নম্বর থেকে বিয়োগ করা হবে। উলটো দিকে প্রতিটি সঠিক উত্তরের জন্য তুমি পেয়ে যাচ্ছ ১.২০ নম্বর। সেক্ষেত্রে তুমি যদি পাঁচটা প্রশ্ন অনুমানের ভিত্তিতে উত্তর কর, তাহলে এত লেখাপড়া করার পর আমার বিশ্বাস যে তোমার তার মাঝ থেকে অন্তত একটা সঠিক হবেই। আর সেই সঠিক উত্তরই তোমার বাকি চারটা ভুল উত্তরকে রিকভার করে ফেলবে। তবে অনুমানের উপর ভিত্তি করে খুব বেশি উত্তর করা উচিত না।

জেনে নাও গ ইউনিটের জন্যে এক্সপার্ট অ্যাডভাইস!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ ইউনিটের পরীক্ষায় ভালো করতে হলে, কঠোর অধ্যাবসায়ের পাশাপাশি কি কি প্রয়োজন?

জানতে দেখে ফেলো ১০ মিনিট স্কুলের এই এক্সক্লুসিভ ভিডিওটি!

১০ মিনিট স্কুলের এক্সপার্ট অ্যাডভাইস সিরিজ

৬। মেরিটে আসার জন্য কিংবা ভাল বিষয় পড়ার জন্য ন্যূনতম কত নম্বর পাওয়া লাগবে?

প্রথমত, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের যেকোনো বিষয়ই খুবই ভাল। আর ন্যূনতম নম্বরটা প্রশ্নের উপর নির্ভর করে। প্রশ্ন সহজ আসলে ন্যূনতম নম্বরটা অনেক বেশী হয়ে যায় আর প্রশ্ন কঠিন হলে তার বিপরীতটা।

৭। মাধ্যমিক আর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল ভর্তি পরীক্ষায় কতটুকু প্রভাব ফেলে?  

প্রথমত গ ইউনিটে পরীক্ষা দেয়ার জন্য মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক মিলিয়ে মোট ৭.৫ পয়েন্ট থাকা লাগবে। এরপর ১২০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষার সাথে ৮০ নম্বর মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিকের উপর ভিত্তি করে যোগ করা হয়। এখানে, মাধ্যমিকের ফলাফলের সাথে ৬ এবং উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফলের সাথে ১০ গুণ করে এই নম্বরটা দেয়া হয়। অর্থাৎ, ৫.০০×১০+৫.০০×৬=৮০।

সব বিষয়ের জন্যই উচ্চমাধ্যমিকের বইটা খুব ভাল করে পড়ে ফেলতে হবে

৮। গৃহশিক্ষকের কাছে পড়া ভাল না কোচিং সেন্টারে? কোন কোচিং সেন্টারটা ভাল হবে?

লেখাপড়াটা পুরোপুরি তোমার উপরই নির্ভর করে। গৃহশিক্ষক এবং কোচিং শুধুমাত্র গাইডেন্স দিবে। সেক্ষেত্রে গৃহশিক্ষকের কাছে পড়লে কোচিংয়ে যাতায়াতের অনেক সময় বেঁচে যায় আর গৃহশিক্ষক যতক্ষণ পড়াবেন ততক্ষণ তাঁর মনোযোগ শুধুমাত্র তোমার প্রতিই থাকবে। আবার কোচিংয়ে পড়লে একটা প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশের স্বাদ পাওয়া যায়। অনেক সময় কোনো অনিবার্য কারণে গৃহশিক্ষক অনুপস্থিত থাকতে পারে যে সমস্যাটা কোচিংয়ে হবে না।

admission tips, commerece background, Dhaka University

আর সব কোচিংই প্রায় কাছাকাছি মানেরই আর যেহেতু পড়াটা তোমার কাছে, সেহেতু কোচিং তেমন একটা ম্যাটার করে না এক্ষেত্রে। তবে শেষের দিকে নিজেকে যাচাই করার জন্য কোনো কোচিং সেন্টারে মডেল টেস্ট দিলে ভাল হয়। আর এছাড়া 10 minute school live classes তো আছেই!

৯। ইংলিশ মিডিয়ামের শিক্ষার্থীরা কীভাবে প্রস্তুতি নিবে?

ইংলিশ মিডিয়ামের প্রশ্নে ইংলিশ, এ্যাডভান্সড ইংলিশ এবং ইকোনমিক্স, এ্যাকাউন্টিং এবং ব্যবসায় এই তিনটা বিষয় থেকে যেকোনো দুইটা বিষয়ের উত্তর করতে হয় যা পুরোপুরি ও লেভেল এবং এ লেভেল বিশেষ করে এ লেভেলের সিলেবাস থেকে হয়।

১০। কোন বিষয়ের জন্য কোন বই ভাল হবে?

প্রথমত সব বিষয়ের জন্যই উচ্চমাধ্যমিকের বইটা খুব ভাল করে পড়ে ফেলতে হবে শুধুমাত্র বাংলা ২য় পত্র বাদে কারণ বাংলা ব্যকারণের প্রশ্ন বেশিরভাগই হয় মাধ্যমিকের বই থেকে। ভর্তি পরীক্ষায় অনেক ধরণের সাম্প্রতিক এবং অতিরিক্ত তথ্য আসতে পারে যার জন্য বাজারে অনেক ধরণের বই পাওয়া যায়। এর মাঝে বাংলার জন্য সরোবর, হিসাব বিজ্ঞানের জন্য RABS, ব্যবস্থাপনা, ফিন্যান্স এবং মার্কেটিং এর জন্য যথাক্রমে, Fundamental of Management, Fundamental of Finance এবং Fundamental of Marketing ভাল হবে।

admission tips, commerece background, Dhaka University

ইংরেজির জন্য Adroit এবং এর পাশাপাশি একটা পকেট ভোকাবুলারি গাইড রাখা যেতে পারে যেকোনো জায়গায় যখন তখন পড়ার জন্য। সব গাইডের পেছনেই বিগত বছরের প্রশ্ন দেয়া থাকে ওগুলো সমাধান করে ফেলতে হবে আর পেছনে প্রশ্ন না পেলে পরীক্ষার আগে একমাস হাতে রেখে একটা Question Bank কিনে সমাধান করে ফেলতে হবে।

ইংরেজি ভাষা চর্চা করতে আমাদের নতুন গ্রুপ- 10 Minute School English Language Club-এ যোগদান করতে পারো!

১১। মোটামুটি ধরণের শিক্ষার্থীরা কি পড়তে পারে এখানে?

অবশ্যই হ্যাঁ! যে ধরণের শিক্ষার্থীই হোক না কেন, তার থাকতে হবে অদম্য ইচ্ছা এবং অধ্যবসায়। আমি নিজেই তো একজন মোটামুটি ধরণের শিক্ষার্থী!

১২। গ ইউনিটের প্রস্ততির পাশাপাশি গণিত এবং সাধারণ জ্ঞান কি পড়া উচিৎ?

সেটা পুরোপুরি তোমার সামর্থ্যর উপর নির্ভর করে। যেহেতু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাদে সকল বিশ্ববিদ্যালয়েই ভর্তি পরীক্ষায় গণিত আসে তাই গ ইউনিটের পাশাপাশি গণিত চর্চা করতে পারো। তবে তোমার যদি একমাত্র লক্ষ্য থাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় অনুষদ এবং যদি অনেক আত্মবিশ্বাস থাকে যে এখানে তুমি পড়তে পারবেই, তাহলে গণিত চর্চার দরকার নেই।

তবে হ্যাঁ, গণিতের বেসিকটা পরিষ্কার রাখতেই হবেসাধারণ জ্ঞান দরকার হয় মূলত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের জন্য যার জন্য গ ইউনিটের ফলাফলের পর এক মাস প্রস্ততি নেবার সময় পাওয়া যায়। তাই সাধারণ জ্ঞান ঐ এক মাসের জন্য রেখেই দিলেই বোধ হয় ভাল হয়।

তো, পরীক্ষার্থীদের করা হরেক রকমের প্রশ্নের মাঝ থেকে এই কয়েকটা ছিল সবচেয়ে কমন যার কারণে উত্তরগুলো দিয়ে দিলাম। এরপরও যদি কোনো বিষয় নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দের সৃষ্টি হয় তবে কমেন্ট সেকশন তো রয়েছেই!


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?