যেকোনো বিষয়ে খুব সহজেই হয়ে উঠো দক্ষ

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবারে শুনে নাও!

 

কিছুদিন আগে আমার এক শিক্ষক বলছিলেন,  তার দুইজন ছাত্র একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকরির আবেদন করেন। তাদের মধ্যে একজনের সিজিপিএ ছিল খুব ভালো আর অপরজনের সিজিপিএ খুব একটা ভালো না হলেও বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতার দিক দিয়ে তিনি ছিলেন এগিয়ে। শেষে জানা গেলো দক্ষতার দিক দিয়ে যিনি এগিয়ে ছিলেন, চাকরিটা কিন্তু তিনিই পেয়েছিলেন।

আমরা অনেকেই এখনও মনে করি যেহেতু আমরা এখনও ছাত্র সেহেতু আমাদের শুধু পরীক্ষার ফলাফলেই বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত। সময় এখন অনেক বদলে গেছে সেই সাথে বদলে গেছে চাকরির শর্তগুলোও। সময়টা এখন এত প্রতিযোগিতামূলক হয়ে গিয়েছে যে, যার যত বেশি দক্ষতা সেই সবচেয়ে বেশি এগিয়ে। দক্ষতা অর্জন করা খুব যে কঠিন, তা কিন্তু নয়। যা প্রয়োজন তা

হলো শুধু ইচ্ছার।

আমরা সবাই চাই যেকোনো বিষয় খুব তাড়াতাড়ি আয়ত্ত করতে। সুতরাং, আজকে আমরা দেখব যেকোনো বিষয়ে খুব তাড়াতাড়ি দক্ষতা অর্জন করার কয়েকটি টিপস।   

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশান ইত্যাদি স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য 10 Minute School Skill Development Lab নামে ১০ মিনিট স্কুলের রয়েছে একটি ফেইসবুক গ্রুপ।

১। ছোট ছোট বিষয়ে ভাগ করে নাও:

আমি যখন ডিজাইনিং শেখার সিদ্ধান্ত নিলাম, তখন ডিজাইনিংয়ে পারদর্শী এক বন্ধু আমাকে উপদেশ দিলো পুরো  ডিজাইনিং বিষয়টিকে ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে নিতে। তার কথা মতোই ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে নিলাম, ফলে শেখাটা এতটাই সহজ হয়ে গিয়েছে যে, সব খুঁটিনাটি বিষয়েও আমার স্বচ্ছ ধারণা তৈরি হয়ে গেল।

যেমন: এই সফটওয়ারের মাধ্যমে কী কী করা যেতে পারে, বিভিন্ন টুলস এবং ফাংশানের কাজ ইত্যাদি। কাজটিকে ভাগ করে নেয়ায় শেখাটা সহজ, সময়োপযোগী এবং মজাদার হয়ে গেল।  

২। অভিজ্ঞের কাছ থেকে শেখো:

আমি জানতে পারলাম আমার এক বন্ধু খুব ভালো ডিজাইনিং করে। তাই আমি তার সাথে কথা বলে প্রতিদিন কিছুটা সময় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতাম। কোন সমস্যা বের হলে তার থেকে সমাধান এবং ভালো করার পরামর্শ চেয়ে নিতাম। আলোচনা করতে গিয়ে আমি অনেক নতুন নতুন তথ্য জানতে পারি যা আমাকে ডিজাইনিং শেখায় খুব সাহায্য করেছে। আগে থেকেই অনেক কিছু জানার ফলে কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে সেটির সমাধান পেতেও বেগ পেতে হতো না।

৩। রিসার্চ এবং অনুশীলন করো:

ডিজাইনিং সম্পর্কে রিসার্চ করে যখন বাস্তবায়ন করতে গেলাম, তখন দেখলাম অনেককিছুই ঠিক সেইভাবে হচ্ছিল না। তখন বুঝতে পারলাম শুধু রিসার্চ দিয়ে হবে না, প্রয়োজন অনুশীলনের। যত না রিসার্চ করেছি তার চেয়ে বেশি করেছি অনুশীলন। অনুশীলন করতে করতে বিষয়টি আমার কাছে খুব মজাদারও হয়ে গেল। নিজের তৈরি কোন ডিজাইন দেখলে খুব ভালো অনুভব হতো।

চল স্বপ্ন ছুঁই!
 

৪। বিভিন্ন মাধ্যম থেকে শেখো:

ডিজাইনিংকে ভালোভাবে আয়ত্ব করতে আমি বিভিন্ন মাধ্যমের সাহায্য নিয়েছি। যেমন সেই বিষয়ে বিভিন্ন ভিডিও দেখা, অডিও শোনা, এমনকি সেই বিষয় নিয়ে আর্টিকেলও পড়েছি যাতে আমার এই বিষয়ে খুব পরিষ্কার ধারণা তৈরি হয়।

যখন কোন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি তখন কোন ভিডিওতে দেখা সমস্যার সঙ্গে অনেকাংশেই মিল খুঁজে পেয়েছি এবং তাই আমার মনে হয় এসব মাধ্যম খুব কার্যকর হতে পারে। বিভিন্ন মাধ্যম থেকে শেখার একটি সুবিধা পেয়েছি সেটি হলো, কাজের সময় খুব সহজেই সেটিকে বাস্তবায়ন করতে পারা।  

৪। Feedback জেনে নাও:

নতুন কোন ডিজাইন করলে আমি সবসময় আমার বন্ধু কিংবা যার এই বিষয়ে জ্ঞান রয়েছে তার প্রতিক্রিয়া জেনে নিতাম। কোন ভুল থাকলে যাতে আমি সেটি খুব তাড়াতাড়ি সমাধান করে ফেলতে পারি। দক্ষতা অর্জনে আমাকে ভুল থেকে শিক্ষা নেয়ার বিষয়টি খুব সাহায্য করেছে। ভালো মন্তব্য পেলে এগিয়ে যাওয়ার জন্য আরও উদ্বুদ্ধ হতাম কিন্তু কখনোই হতাশ হয়ে পড়তাম না।

৫। নিজেকে নির্দিষ্ট সময়সীমা দাও:

Parkinson’s Law থেকে শিখেছিলাম “Work expands so as to fill the time available for its completion”। যেকোনো ডিজাইনে কাজ করার জন্য নিজেকে সময় বেঁধে দিতাম। তার ফলে যা হলো সেটি করতে আর ঢিলেমি করিনি এবং খুব কম সময়ে সঠিকভাবে কাজ করারও অভ্যাস তৈরি হয়ে গেল যা আমাকে অন্য কাজেও খুব সাহায্য করেছিল।

৬। ছেড়ে দেয়ার কথা ভেবো না:

নতুন যখন ডিজাইনিংয়ের শখ হলো তখন খুব আগ্রহ সহকারে কাজ করতাম। কিন্তু কিছুদিন পর দেখতে পেলাম সেই আগ্রহ দিন দিন কমে যাচ্ছে এবং আমি হতাশ হয়ে পড়ছি। তখন আমার বন্ধু আমাকে বললো, ‌John Kauffman তার একটি বইয়ে লিখেছিলেন, কোন কিছুতে ভালো করতে হলে শুধু ২০ ঘণ্টার অনুশীলনই যথেষ্ট।

সেখানে তিনি আরও বলেছিলেন, যখন মানুষ দিনের পর দিন অনুশীলন করার পরেও সেখানে ভালো করতে পারে না তখন তারা ‘The Frustration Barrier-এর মধ্যে দিয়ে যায় যার ফলে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে এবং এটি তাদের শেখার পথে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

সুতরাং, আমি সিদ্ধান্ত নিলাম ২০ ঘণ্টার অনুশীলন ছাড়া সেটিকে ছেড়ে দেয়ার কথা ভাবাটাও বোকামি। তাই আমি নিজের উপর বিশ্বাস রেখে কাজ করে যেতে থাকলাম। যেগুলো ভুল হতো সেগুলোকে বারে বারে অনুশীলন করতাম। শেষ পর্যন্ত আমি ডিজাইনিংয়ে দক্ষতা অর্জনে সফল হয়েছি এবং এটির প্রতি আমার গভীর আসক্তিও তৈরি হয়ে গিয়েছে।

মানুষ পারে না এমন জিনিস খুব কমই আছে এই পৃথিবীতে। কোন বিষয়ে দক্ষতা অর্জন সেই তুলনায় খুবই সহজ একটি বিষয়। যেকোনো বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে এই টিপসগুলো অনুসরণ করলেই দেখবে খুব কঠিন কাজেও খুব সহজেই দক্ষতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছ।

এই লেখাটির অডিওবুকটি পড়েছে আব্দুল্লাহ আল মেহেদী


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
Author

Aysha Noman

Simplicity is the essence of her happiness. Loves to read books and watch movies. Enjoy being a business student during the day and a writer by night. She is currently studying at the Department of Marketing, University Of Dhaka.
Aysha Noman
এই লেখকের অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন
What are you thinking?