৪-৭-৮, Insomnia কুপোকাত!

পুরোটা পড়ার সময় নেই ? ব্লগটি একবার শুনে নাও !

ফেসবুকের হোমপেজ স্ক্রল করতে করতেই দেখলাম রাত সাড়ে তিনটা বেজে গেছে। খুব যে ইন্টারেস্টিং কিছু দেখছি তা কিন্তু নয় বরং আমি মনেপ্রাণে চাচ্ছি ঘুমের জগতে হারিয়ে যেতে কেননা সকাল আটটায় ক্লাস ধরতে হবে। একবার কি ভেড়া গুনে দেখব? চোখ বন্ধ করে ভেড়া গোনা শুরু করতে গিয়েই অনেক আগে পড়া একটা আর্টিকেলের কথা মনে পড়ে গেল, “How to sleep in one minute!”

ভাবলাম, এইতো সুযোগ! দেখিতো, ঐ আর্টিকেলে মিনিটের মাঝে ঘুম পাড়িয়ে দেয়া যেই ৪-৭-৮ পদ্ধতির কথা পড়েছিলাম তা সত্যি কতটুকু কাজে লাগে! ২০ সেকেন্ড চোখ বন্ধ করে সেই পদ্ধতি কাজে লাগানোর পর মনে হল, ধুর! কী সব ছাইপাশ। কিচ্ছুই তো হলনা! এটা মনে করার পর কী হল আমি আর জানি না… ঘুম ভেঙ্গে দেখি সকাল হয়ে গেছে।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

৪-৭-৮ পদ্ধতিটা কী আসলে?

এটা আসলে মেডিটেশনের একটা পদ্ধতি যা মাত্র ১৯-২০ সেকেন্ডেই তিনটি ধাপের মাধ্যমে শেষ হয়।

১। চোখ বন্ধ করে আস্তে আস্তে ৪ সেকেন্ড গভীরভাবে শ্বাস নিন।

২। বড় করে শ্বাস নিয়ে ৭ সেকেন্ড ধরে রাখুন।

৩। আস্তে আস্তে করে তা ৮ সেকেন্ড ধরে ছাড়ুন।

ব্যস, হয়ে গেল! প্রথমবারে ঘুম না আসলে ৩-৪ বার আরো করে নিতে হবে।

 
জেনে নাও লিডারশীপ এর খুঁটিনাটি!
 

৪-৭-৮ পদ্ধতি কাজ করে কীভাবে?

গবেষণায় বলা হয় যে, আমরা যখন কোনোকিছু নিয়ে অনেক বেশি স্ট্রেসড থাকি, তখন আমাদের শ্বাস প্রশ্বাসের মাত্রা কমে আসে যাতে করে আমাদের শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায় আবার অপর দিকে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যায়। এই সময়টাই আমাদের শরীরে অবসাদ বেড়ে যায় আর ঘুম কম হতে থাকে।

যেই জিনিস নিয়ে আমরা টেনশন করছি কিংবা স্ট্রেস নিচ্ছি, তা আর মাথায় আসে না

৪-৭-৮ পদ্ধতি অনুসরণের সময় আমরা যখন প্রথমে ৪ সেকেন্ড শ্বাস নেই, ঐ সময় আমাদের শরীর সেই অক্সিজেনের ঘাটতি পূরণ করে। এরপরের ৭ সেকেন্ড, আমাদের কোষে সেই অক্সিজেন সংরক্ষিত হয় এবং শেষ ৮ সেকেন্ডে আমাদের অপ্রয়োজনীয় কার্বন ডাই অক্সাইড শরীর থেকে বের হয় যায়। ছাড়াও একে অনুসরণের সময় আমাদের সকল মনোযোগ এই ৪-৭-৮ এর পেছনেই থাকে। তাই যেই জিনিষ নিয়ে আমরা টেনশন করছি কিংবা স্ট্রেস নিচ্ছি, তা আর মাথায় আসে না।

 

ইংরেজি ভাষা চর্চা করতে আমাদের নতুন গ্রুপ- 10 Minute School English Language Club-এ যোগদান করতে পারো!

 

তো শুরুতে যা বলছিলাম, মধ্যরাতে আমি যখন ফেসবুক হোমপেজ স্ক্রল করতে থাকি, তখন আমি যে পুরোপুরি একা থাকি এমনটা কিন্তু না… আমার মত আরো হাজার হাজার মানুষও তখন হয়ত আমার মতই ফেসবুকে ঢুকে সকাল আটটার ক্লাসের কথা চিন্তা করে। অনেকে আবার তখন “ঘুমও ধোঁকা দেয়” এ ধরণের স্ট্যাটাস পোস্ট করতে থাকে!

তাই আপনিও যদি এরকমই একজন হোন, তবে একবার ৪-৭-৮ পদ্ধতিটা অনুসরণ করেই দেখুন না! ঘুম আর ধোঁকা দিবে না!   


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?