প্রোগ্রামিং এর হাতেখড়ি (পর্ব-৩)

কমেন্টস লিখা

টাইটেল দেখে অনেকে ভাবতে পার কমেন্টস তো ফেসবুকে লিখি। সি প্রোগ্রামিং এ আবার এটা কি জিনিস?

ঘটনা হল অনেক সময় বড় বড় প্রোগ্রামে লিখে রাখতে হয় তুমি কি করছ। যাতে পরে তুমি মনে রাখতে পার আসলে কি ঘটনা ঘটেছে। এটা প্রোগ্রামের কোন অংশ না। শুধুমাত্র তোমার মনে রাখার জন্য অথবা পরে সহজে বুঝবার জন্য। কিন্তু এটা তো একটা কম্পাইলার! এখানে আলাদা করে লিখার কি কোন যায়গা আছে?

ঘুরে আসুন: প্রোগ্রামিং এর হাতেখড়ি (পর্ব-৩)

আসলে আলাদা করে লিখার দরকার নেই। 😛 যেমন  /* দেওয়ার পর তুমি যাই লিখ না কেন ওটা আর কম্পাইল হবে না */ দেওয়ার আগ পর্যন্ত। এটাকেই প্রোগ্রামিং এর ভাষায় কমেন্টস বলে।

#include<stdio.h>

main()

{

/*we will print now */

printf(“I am a C programmer”);

}

লাইন কম্পাইল করে দেখলে দেখবে we will print now লাইনটি আউটপুটে আসবে না।

কনভার্সন ক্যারেক্টার

কনভার্সন ক্যারেক্টার বুঝতে হলে স্ট্রিং বুঝতে হবে। এক কথায় বলতে স্ট্রিং হল ক্যারেক্টার বা শব্দের সমস্টি।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশান ইত্যাদি স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য 10 Minute School Skill Development Lab নামে ১০ মিনিট স্কুলের রয়েছে একটি ফেইসবুক গ্রুপ।

কনভার্সন ক্যারেক্টার হল এমন একটা প্লেসঅর্ডার যাতে আমরা কোন স্ট্রিং রাখব সেটা বোঝা যায়। কনভার্সন ক্যারেক্টার ব্যবহার করে একটা প্রোগ্রাম আমরা এখন দেখব।

main()

{

printf(“%s is a good boy\n”);

}

এই লাইন থেকে যেটা বোঝা যায় সেটা হল কোন শব্দ বা কোন টেক্সট একজন ভাল ছেলে। এখন আমরা যদি নতুন একটা স্ট্রিং নিয়ে আসি এরকম,

main()

{

printf(“%s is a good boy\n”, “Rahim”);

}

এখন আউটপুটটা এরকম আসবে Rahim is a good boy.

অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে %s এ রিপ্লেস হচ্ছে Rahim। এখন আরেকটা %s থাকলে কি হবে এই লাইনে?

main()

{

printf(“%s is a good boy %s \n”, “Rahim”, “I have ever seen”);

}

দ্বিতীয় %s এর যায়গায় আউটপুটে বসে যাবে I have ever seen

বলে রাখা ভাল এই %s টা শুধুমাত্র স্ট্রিং এর জন্য। টেক্সট, ওয়ার্ড ইত্যাদির জন্য। কিন্তু এমনও তো হতে পারে আমরা নাম্বার ব্যবহার করছি?

main()

{

Printf(“Bangladesh won by %d runs”, “67”);

}

আউটপুটটা এরকম আসবে তখন, Bangladesh won by 67 runs

%d এটা শুধু মাত্র ইন্টিজার নাম্বারের জন্যই প্রযোজ্যো। এখানে দশমিক আনলে কিন্তু রেসাল্ট ভুল দেখাবে।

যদি আমরা দশমিক নাম্বার রাখতে চাই তাহলে  %f লিখতে হবে।

main()

{

Printf(“Bangladesh won by %f runs”, “67.5”);

}

পাওয়ারপয়েন্টের জাদুতে মুগ্ধ কর সবাইকে!

পাওয়ারপয়েন্ট ব্যবহার করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সেরে ফেলা যায়!

পাওয়ারপয়েন্টের সহজ ব্যবহার শিখতে ঘুরে এসো ১০ মিনিট স্কুলের এক্সক্লুসিভ এই প্লে-লিস্টটি থেকে!

শিখে ফেল পাওয়ারপয়েন্টের জাদু!

 

ডাটা টাইপঃ

ভেরিয়েবল ঘোষণার জন্য ডাটার মান অনুযায়ী ডাটা টাইপ প্রয়োজন হয়। ডাটা টাইপ চার প্রকার মূলত।

  1. char
  2. int
  3. float
  4. double

 

Char:

সি প্রোগ্রামিং এ ক্যারেক্টার টাইপ বা বর্ণমালা নিয়ে কাজ করার জন্য char টাইপ Variable declare জন্য char ডাটা টাইপ ব্যবহার করা হয়। char টাইপের Variable declare করার জন্য char কীওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়।

যেমনঃ char ch;

int:

পূর্ণ সংখ্যা নিয়ে কাজ করার জন্য int টাইপের Variable declare করার জন্য int ডাটা টাইপ ব্যবহার করা হয়। int টাইপের Variable declare করার জন্য int কীওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়।

যেমনঃ int x;

float:

দশমিক সংখ্যা নিয়ে কাজ করার জন্য float টাইপের Variable declare করার জন্য float ডাটা টাইপ ব্যবহার করা হয়। float টাইপের Variable declare করার জন্য float কীওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়।

যেমনঃ float y;

double:

দশমিক চিহ্নযুক্ত বৃহৎ মানের সংখ্যা নিয়ে কাজ করার জন্য double টাইপের Variable declare করার জন্য double ডাটা টাইপ ব্যবহার করা হয়। double টাইপের Variable declare করার জন্য double কীওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়।

যেমনঃ double z;

IQ তথা Intelligence Quotient পরীক্ষা সবখানেই অনেক সমাদৃত। এখন ১০ মিনিট স্কুলের সাথে ঘরে বসেই পরীক্ষা করে নাও তোমার IQ!

ডাটা টাইপ ডিক্লেয়ারঃ

ডাটা টাইপ ডিক্লেয়ার করা বলতে নির্দিষ্ট ডাটা টাইপের ভেরিয়েবল ডিক্লেয়ার করাকেই বোঝায়। কোন ডাটা টাইপের ভেরিয়েবল ডিক্লেয়ারের ফরম্যাটঃ

DataTypeName     VariableName;

Example: Char ch;  int x;

ঘুরে আসুন: প্রোগ্রামিং এর হাতেখড়ি (পর্ব-১)

ভেরিয়েবলঃ

ভেরিয়েবল বলতে বোঝায় মেমরির লোকেশনের নাম বা ঠিকানা। প্রোগ্রামে ডাটা নিয়ে কাজ করার সময় প্রতিটি ডাটার জন্য একটি ভেরিয়েবল ব্যবহার করতে হয়। এগুলোর অবস্থান পরিবর্তন হতে পারে বলেই এদের ভেরিয়েবল বা চলক বলা হয়।

অর্থাৎ, কোন ভেরিয়েবলে যে কোন সময় কেবলমাত্র একটি ডাটা রাখা সম্ভব। মোটামোটি পাঁচ ধরণের ভেরিয়েবল ব্যবহৃত হয় সি ল্যাংগুয়েজে।

 

  1. Numeric variable
  2. Array variable
  3. Pointer variable
  4. String variable
  5. Custom Variable.

 

Variable Declare:

প্রোগ্রামে কোন ডাটা নিয়ে কাজ করার জন্য প্রথমে ডাটা টাইপ সহযোগে ভেরিয়েবল Declare করতে হয় সি প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে main() বা অন্যান্য ফাংশানের শুরুতেই সব ভেরিয়েবল; ডাটা টাইপ সহ ডিক্লেয়ার করতে হয়।

তবে মনে রাখতে হবে একই ফাংশানে দুই বা ততোধিক ভেরিয়েবল ডিক্লেয়ার করা যায় না।

ভেরিয়েবল ডিক্লেয়ারের উদাহরণঃ

main()

{

int age;

float marks;

}

এখন age এর জন্য একটি পূর্ণ সংখ্যা এবং marks এর জন্য একটি দশমিক ভগ্নাংশ ব্যবহার করা যাবে।

age=25;

marks=23.8;

নিচের প্রোগ্রামটি দেখি;

 

#include<stdio.h>

int main()

{

int age;

age=27;

printf(“I am %d years old”, age);

}

আউটপুট কি আসে? ভুল আসলে এরর বের কর। 😉


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
Author

Tanvir Saad

স্বপ্ন দেখি অনেক বড়। মুভি দেখতে ভয়ানক ভাল লাগে। প্রচুর সিনেমা দেখতে দেখতে কোন এক অদ্ভুত ভাবে মাথায় সিনেমা বানানোর পোকা সম্প্রতি ঢুকে গেছে। এই অদ্ভুত স্বপ্ন আমায় ঘুমোতে দেয় না প্রতিরাত!
Tanvir Saad
এই লেখকের অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন
What are you thinking?