গ্রুপ স্টাডি: পড়াশোনা হোক বন্ধুদের সাথে

পুরোটা পড়ার সময় নেই ? ব্লগটি একবার শুনে নাও ।

পরীক্ষা নিয়ে আমরা সবাই বিচিত্র সব অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। হয়তো পরীক্ষার ঠিক আগের রাতে অথবা হয়তো পরীক্ষার দিন সকালে রিভিশন দেয়ার সময়। যেমন, “দোস্ত, এটা তো মনে থাকছে না, কিভাবে মনে রাখব বল তো?” এইরকম পরিস্থিতির শিকার সবাই-ই কম বেশি  হই। যেই টপিকটা অনেক সময় নিয়েও মাথায় ঢুকানো যায়নি, সেটাই তোমার বন্ধু হয়তো ১০ মিনিটে কৌশলে বুঝিয়ে দিতে পারবে অনায়াসে। ধরে নাও, এটা যদি পরীক্ষার আগের দিন না হয়ে আগেই বুঝে নেয়া যেত, জিনিসটা দারুণ হতো না? এখন সেটারই একটা উপায় বলে দেয়া যাক, যা গ্রুপ স্টাডি হিসেবে পরিচিত।

গ্রুপ স্টাডি কী?

‘গ্রুপ ওয়ার্ক’ টার্মটার সাথে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত, তবে ‘গ্রুপ স্টাডি’ টার্মটা অনেকের কাছেই নতুন। গ্রুপ ওয়ার্ক এবং গ্রুপ স্টাডির মাঝে পার্থক্য কিন্তু অবশ্যই আছে। গ্রুপ ওয়ার্কের উদ্দেশ্য একটাই, সবাই মিলে একটা কাজ সম্পন্ন করা; অপর দিকে, গ্রুপ স্টাডির উদ্দেশ্য হল সবাই একসাথে মিলে নিজের পড়াটাকে সহজ করে নেয়া।

গ্রুপ স্টাডি সম্পর্কে এবার কিছু ধারণা দেয়া যাক, গ্রুপ স্টাডি করবার জন্য ম্যাক্সিমাম ৩ থেকে ৪ জন যথেষ্ট। সংখ্যাটা ৩ এর মাঝে রাখাটাই শ্রেয়। গ্রুপ স্টাডির জন্য স্টাডি পার্টনার বাছাই করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এমন কাউকে নেবে যার সাথে তোমার বোঝাপড়াটা ভাল হবে। সবচেয়ে ভাল বন্ধুর সাথেই যে পড়তে হবে এমনটা নয়। এমন কাউকে বেছে নাও, যার সাথে তুমি পড়ে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবে। গ্রুপ স্টাডির জন্য জায়গা নির্বাচন করাটাও গুরুত্বপূর্ণ। হতে পারে তা লাইব্রেরি বা যেখানে মনোযোগ দিয়ে পড়া যাবে, এমন কোন জায়গা।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

কী কী সুবিধা পেতে পারো?

১। গ্রুপ স্টাডির মাধ্যমে তুমি সময়ের পড়াটা সময়ে শেষ করে ফেলতে পারবে। যদি তাও না হয়, কমপক্ষে একটা ভাল আইডিয়া থাকবে যা তোমাকে পরবর্তী সময়ে সাহায্য করবে পড়াটাকে গুছিয়ে নেয়ার জন্য।

২। যে টপিকটা তোমার জন্য কঠিন, যেটা হাজার চেষ্টা করেও সহজ উপায়ে মনে রাখতে পারছো না, সেটা গ্রুপ স্টাডির জন্য রেখে দাও। আলোচনার মাধ্যমে কঠিন বিষয়টিও সহজ করে মনে রাখতে পারবে।

৩। পড়ার ক্ষেত্রে এমনটা প্রায়ই হয়, আধঘণ্টা পড়ার পর মনোযোগটা চলে যায়, বিশেষ করে যে পড়াগুলো খুব বেশি সময় লাগে পড়তে। এক্ষেত্রে, গ্রুপ স্টাডিটা একটা সমাধান হয়ে দাঁড়াবে।

এতে কয়েকজন মিলে সময়সাপেক্ষ পড়াগুলো সেরে নিতে পারবে আনন্দের সাথেই। কমপক্ষে পড়ার সময় একঘেয়েমিটা চলে আসবে না।

৪। গ্রুপ স্টাডি থেকে শিখে নিতে পারবে পড়াশুনার বিভিন্ন কৌশল। সেটা হতে পারে মুখস্থ করার ক্ষেত্রে, কিংবা হতে পারে পরীক্ষার বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর কিভাবে দেয়া যায় তা সম্পর্কে।

৫। গ্রুপ স্টাডি তোমাকে সাহায্য করবে নিজের ভুল সংশোধন করে নিতে। এমন অভিজ্ঞতা আমাদের সবারই কম বেশি হয়েছে, পরীক্ষার খাতায় ভুল করে এসে হল থেকে বের হবার পর বন্ধুর কাছ থেকে জানতে পেরেছি উত্তরটা অন্যভাবে হবে, যা হয়ত আগে জানাও ছিল না।

৬। গ্রুপ স্টাডির মাধ্যমে নিজের দুর্বলতা সম্পর্কে অবগত হও। যে বিষয়গুলো তোমার কাছে জটিল মনে হচ্ছে, সেগুলো একটি নোট খাতায় গুছিয়ে নিতে পার।

৭। ক্লাসে যে নোটগুলো দেয়া হয়, বা যে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়, সেগুলো রিভিউ করবে গ্রুপ স্টাডিতে। এতে পড়াশুনাটা নিজের আয়ত্তে চলে আসবে খুব সহজেই।

৮। নিজের মনে রাখার ক্ষমতাকে আরো বাড়িয়ে তোলো। গ্রুপ স্টাডির সময় যখন একটা বিষয় নিয়ে পড়া হয় তখন চেষ্টা কর তোমার স্টাডি পার্টনারকে বিষয়টার উপর তোমার ধারণা ঠিক আছে কিনা তা চেক করিয়ে নিতে। এভাবে তোমার চিন্তাশক্তি বাড়বে, ধারণক্ষমতা বাড়বে; অপরদিকে তোমার স্টাডি পার্টনারেরও লাভ হবে, তারও পড়াটা ঝালাই করে নেয়া হবে।

এবার বাংলা শেখা হবে আনন্দের!

আমাদের প্রতিটি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বাংলা ভাষা চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম!

তাই আর দেরি না করে, আজই ঘুরে এস ১০ মিনিট স্কুলের এক্সক্লুসিভ বাংলা প্লে-লিস্টটি থেকে!

১০ মিনিট স্কুলের বাংলা ভিডিও সিরিজ

গ্রুপ স্টাডি নিয়ে অনেক কিছুই তো বলা হলো। এবার, কিছু উপদেশমূলক কথা বলা যাক। হ-য-ব-র-ল যেন না হয়ে যায় তার জন্যই কিছু কথা।

গ্রুপ স্টাডির ক্ষেত্রে সবচেয়ে যে বিষয়টি খেয়াল রাখা প্রয়োজন তা হল, সময়ের ব্যাপারে অবগত হওয়া। সময়ের ব্যাপারে সতর্ক হও। ৪/৫ ঘণ্টা পড়লে ঠিকই কিন্তু আউটপুটটা যেন শূন্য না হয় সেদিকে খেয়াল রাখ। সময়টাকে সীমাবদ্ধ করে নাও এমনভাবে যেন সময় নষ্ট না হয়। মনে কর, একটা টপিকের উপর সময় ঠিক করে নাও, ১ ঘণ্টা। এই সময়ের মধ্যে কাভার করার চেষ্টা করবে। অন্তত কাভার না হলেও সময় ধরে নেয়ার কারনে ৯০% শেষ করে নেয়া সম্ভব হতে পারে।

গ্রুপ স্টাডিতে সর্বপ্রথম প্রাধান্য দিতে হবে নিজের পড়াশুনাকে। ২/৩ জন বন্ধু-বান্ধব একসাথে যখন বসা হয়, পড়াশুনার চেয়ে গল্পের ঝুলিটাই আকৃষ্ট করতে বাধ্য। গ্রুপ স্টাডি কেবলমাত্র গল্পের আসরে যেন পরিণত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। অন্যমনস্ক হয়ে যাওয়াটা খুবই সহজ; সেটা যেন না হয় সেদিকে নিজেকে সচেতন রাখা জরুরি।

এবার ঘরে বসেই হবে মডেল টেস্ট! পরীক্ষা শেষ হবার সাথে সাথেই চলে আসবে রেজাল্ট, মেরিট পজিশন। সাথে উত্তরপত্রতো থাকছেই!

গ্রুপ স্টাডি মানে এই না যে, এটাই তোমার পড়াশুনার একমাত্র পন্থা। এটা কখনই ভেবে নিও না। নিজের সেলফ স্টাডিটা কোন ক্ষেত্রেই বর্জন করবে না। গ্রুপ  স্টাডি তোমাকে অনেক বেশি সাহায্য করবে সত্যি কিন্তু তাই বলে এটাই তোমার পড়াশুনার ১০০% নির্ভরশীলতা কখনোই হতে পারে না।

Last but not the least, নিজেকে প্রশ্ন কর, কেন গ্রুপ স্টাডি করবে? নিজের সময়ের সদ্ব্যবহার করে নিজের পড়াটাকে সুন্দর করে গুছিয়ে নেয়ার জন্যই তো, তাই না? তাহলে, নিজেকে খেয়াল রাখতে হবে, যেন গ্রুপ স্টাডি করতে গিয়ে নিজের কোনোরূপ পিছিয়ে না পড়া হয়। গ্রুপ স্টাডি যেন কার্যকর হয় সেটাই তো লক্ষ্য।

You know what they say, don’t study harder; study smarter!


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?