সিভি কিলার: যে শব্দগুলো এড়িয়ে চলা উচিত অবশ্যই

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবার শুনে নাও

কিছু কিছু শব্দ আছে যেগুলো সিভিতে ব্যবহার করলে আপনার সিভিটি পরবর্তীতে ইন্টারভিউ কল করার জন্যে কাউন্ট নাও করা হতে পারে। এগুলোকে বলা হয় সিভি কিলার। এরকম কিছু শব্দের সাথে আজ আপনাদের পরিচিত করাই।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশান ইত্যাদি স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য 10 Minute School Skill Development Lab নামে ১০ মিনিট স্কুলের রয়েছে একটি ফেইসবুক গ্রুপ।

১। “Can Do Any Work”:

আমরা অনেকেই ক্যারিয়ার অবজেক্টিভ বা অন্য জায়গায় লিখি “আমরা যে কোন ধরনের কাজ করতে রাজি।” মনে রাখবেন, কোম্পানি যে পদের জন্যে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে শুধুমাত্র এই সংশ্লিষ্ট কাজকে ফোকাস করে ক্যারিয়ার অবজেক্টিভ লিখবেন। সব কাজ জানা লোকের সিভি কোম্পানি আমলে নেয় না।

২। “Is Required”:

অনেকের ক্যারিয়ার অবজেক্টিভে পাওয়া যায় যে তার কাজ করার জন্যে ভালো পরিবেশ লাগবে। আপনার কী প্রয়োজন সেরকম যে কোন শব্দ বা বাক্য বা বাক্যাংশ আপনার সিভিতে থাকলে নিশ্চিত থাকুন, আপনি ইন্টারভিউতে কল পাবেন না। কোন কোম্পানি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী আপনাকে নিয়োগ দিবে না। নিজেকে কাজের মাধ্যমে তুলে ধরুন।

ঘুরে আসুন: অভিজ্ঞতা হোক চাকরির আগেই!

৩। “Results-Oriented Professional”:

অনেকে মনে করেন এরকম কিছু কমন মিষ্টি কথা লিখলেই বুঝি চাকরিদাতা খুব খুশি হয়ে যাবেন। সকলেই ফলাফলের উদ্দেশ্যে কাজ করে। কিন্তু কাজ করার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ফলাফলটুকুই বিবেচ্য হয়।

বল প্রয়োগের পর বস্তুর অবস্থান অপরিবর্তিত থাকলে তাকে কাজ করা বলে না, এর জন্য আপনি যত শ্রমই দিন না কেন এটা কাজ নয়। সুতরাং সিভিতে এরকম গদবাধা কিছু না লিখাই উত্তম।

৪। “Seeking/ Looking For/ Searching”:

এই দুইটি শব্দ দ্বারা বুঝায় চাওয়া। শব্দগুলো এমন অর্থ প্রকাশ করে যেন আপনার কিছুই নেই, আপনি চাচ্ছেন। কিন্তু প্রকৃত ব্যাপারটি মোটেও সেরকম নয়। নিজের কাজ করার ইচ্ছেটা অধিকতর গুরুত্ব সহকারে সিভিতে লিখাই উত্তম।

৫। “Securing”:

অনেকে নিরাপদ চাকরি খোঁজেন। কিন্তু তা কি বাস্তবে সম্ভব? তাই জীবনে চ্যালেঞ্জ নিতে শিখুন। যে চ্যালেঞ্জ নিতে জানে না, তার সিভি কখনোই কোম্পানি ভালো ভাবে নেয় না।

কোম্পানিতে কিছু লোক আছেন যারা নিজেদের অবস্থান পোক্ত করতে চান ও নিজেদের গন্ডির বাইরে নতুন কিছু জানেন না, জানতে চানও না, পারেন না, করেনও না। এই ধরনের লোকদের বলা হয় ক্যাশ কাউ।

এক গোয়ালের গরু যেমন গোয়াল পরিবর্তন করলে দুধ দেয়া বন্ধ করে দেয়, তেমনি, ক্যাশ কাউ প্রজাতির চাকরিজীবীদেরও কেউ সাদরে গ্রহণ করে না।

৬। “Position”:

অনেকে কোম্পানিতে জয়েন করার আগেই পজিশনের কথা উল্লেখ করেন সিভিতে। আগে যে পোস্টে আবেদন করেছেন এই অনুযায়ী সিভি তৈরি করুন, এরপর জয়েন করুন। নিজের কাজ দ্বারা নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করুন। পজিশন তখন এমনিতেই তৈরি হয়ে যাবে। তাই, ধৈর্য ধরুন, আগে থেকেই পজিশন চাওয়ার ভুল করবেন না।

সিভি তৈরির কৌশল জেনে নাও ঘরে বসেই!

পাওয়ারপয়েন্ট ব্যবহার করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সেরে ফেলতে পারেন আপনি!

তাই, আর দেরি না করে ১০ মিনিট স্কুলের এক্সক্লুসিভ এই প্লে-লিস্টটি থেকে ঘুরে আসুন, এক্ষুনি!

১০ মিনিট স্কুলের পাওয়ার পয়েন্ট সিরিজ

৭। “Bottom-Line Orientation”:

এর মাধ্যমে বোঝাচ্ছে আপনি আপনার চাকরিদাতার খুব ভক্ত। আপনি তাঁর অনুগত থাকবেন, এবং তাঁকে আরো টাকা পয়সা তৈরি করতে সাহায্য করবেন। কিন্তু আপনার কাজটা কী হবে, কী আপনার পরিকল্পনা, কী আপনার লক্ষ্য, এরকম কোন প্রয়োজনীয় তথ্য এখানে দেয়া নেই। কাজেই এটিও একটি অপ্রয়োজনীয় প্রলাপ বাক্য।

৮। “Works well with all levels of staff/ Team worker”:

এই ধরনের কথা গুলো উনবিংশ শতাব্দীতে কাজে লাগতো, কিন্তু এখন এরকম শব্দের কোন মূল্য নেই। আপনাকে সফল হতে হলে উচ্চ পর্যায়, নিজের কলিগ ও অধীনস্থ সকলের সাথে কাজ করতে হবে। এটা ছাড়া আপনি এমনিতেই এগোতে পারবেন না।

একটি সিভি দেখতে একজন রিক্রুইটার ১৫ সেকেন্ড সময় খরচ করেন। কাজেই এই ১৫ সেকেন্ডে তার চোখে দরকারী তথ্যটি গেঁথে দিন।

৯। “Cross-Functional Teams”:

এই ফ্রেসটির মানে হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন ডিপার্টমেন্ট থেকে ভিন্ন ভিন্ন লোকের একটি কমন উদ্দেশ্য সাধনের জন্যে কাজ করা। খুব স্বাভাবিক যে একদম উচ্চপদস্থ লোক ছাড়া এরকম কাজ করতে পারাটা বেশ কঠিন।

ঘুরে আসুন: সফল ব্যক্তিদের অবসর কীভাবে কাটে?

অনেকে সিভি বড় করতে কিছু মিথ্যা তথ্যও জুড়ে দেই। ব্যাপারটা অনেকটা এমন যে চাকরিপ্রার্থী যেকোন কাজ করতে পারবে। কিন্তু বাস্তবে এরকম শব্দমালার ব্যাবহার নতুনদের সিভিতে থাকলে তাকে আর ইন্টারভিউতে ডাকার জন্যে বিবেচনা করা হয় না।

১০। “More than [x] years of progressively responsible experience”:

ধরুন, আপনার ৯ বছরের অভিজ্ঞতা। অনেকে সাড়ে নয় বছরের অভিজ্ঞতা একটু জোরদার আকারে জানাতে লিখে ফেলেন নয় বছরের চেয়েও বেশি। কিন্তু এই বেশি মানে তো ১০ বছর নয়। তাই, অযথা এরকম শব্দের ব্যবহার মানব সম্পদ বিভাগের ঝানু লোকেরা খুবই অপছন্দ করেন।

১১। “Superior (or excellent) communication skills”:

স্মার্ট লোকেরা নিজেদের কাজের মাধ্যমেই নিজেদের যোগ্যতা প্রকাশ করেন। তারা কখনো উল্লেখ করেন না যে তাদের যোগাযোগের দক্ষতা ভালো। তাদের কাজই তাদের দক্ষতার প্রতিফলন ঘটায়।

১২। “Strong work ethic”:

এগুলো তেলমারা ধরনের কথা দেখলেই বুঝা যায়। এই ধরনের কথা সিভিতে উল্লেখ থাকলেই যে আপনি খুব ভালো হয়ে যাবেন ব্যাপারটা তা কিন্তু নয়। বরং এসব গদবাধা কথা আপনার সিভিকে দুর্বল ও ফেলনা করে তোলে।

তোমার স্বপ্নের পথে পা বাড়ানোর ক্ষেত্রে তোমার ইংরেজির জ্ঞান কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে! তাই আর দেরি না করে, আজই ঘুরে এস ১০ মিনিট স্কুলের এই এক্সক্লুসিভ প্লে-লিস্টটি থেকে!

১৩। “Proven track record of success”:

এগুলোও চাপাবাজদের সস্তা কথা। চাকরির বাজারে এসব কথা সকলেই বলে। আসলে এগুলো অনেকটা মিথ্যা প্রচারের মত।

সিভিতে কোনভাবেই কোন ভুল তথ্য দিবেন না। মিথ্যা তথ্য ধরা পড়লেও আপনি চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা হারাবেন। অনেকে সিভি পাঠান কিন্তু ইন্টারভিউ কল পান না, আপনার সিভিতে এই কিলার ফ্রেজগুলো থাকলে আজই সরিয়ে ফেলুন সিভি থেকে। আশা করি, ভালো ফল পাবেন।


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
What are you thinking?