সপ্তম শ্রেণি: চারু ও কারুকলা

বিভিন্ন প্রকার শিল্পকর্ম

রাশাদের চারু ও কারুকলা শিক্ষিকা একদিন ক্লাসে হঠাৎ একটি সুতা দিয়ে নকশা করা কাপড় নিয়ে আসলেন । এটি দেখে ক্লাসের সবাই তো বুঝতে পারলো না, যে তিনি কেন এটি নিয়ে আসলেন। পরবর্তীতে তাঁদের শিক্ষিকা আপা বললেন, “শিল্পকর্ম যে শুধু ছবি আঁকার মধ্যে নয়, অন্য বিষয় নিয়েও হয় এটি বুঝানো জন্যই আজ এটি নিয়ে আসলাম। আজ তোমাদের একটি নতুন অধ্যায়ের সাথে পরিচিত করবো, যেখানে তোমরা বিভিন্ন রকম শিল্পকর্ম সম্পর্কে ধারণা পাবে। সাথে সাথে সুতা, তুলা এগুলো দিয়ে বিভিন্ন জিনিস তৈরিও করতে পারবে।” ক্লাসের সবাই বেশ আগ্রহ পেলো। তো বন্ধুরা, চলো আমরাও জেনে আসি বিভিন্ন শিল্পকর্ম সম্পর্কে।

তুলা ও কাপড়ের তৈরি কারুশিল্প

মনে করো, তুলা দিয়ে আমরা কোনো লেখার কাজ আরম্ভ করতে চাই। তাহলে সেটির ধাপ কী কী হবে? চলো, জেনে আসা যাক-

তুলা দিয়ে ছবি

সূচিশিল্প

আমরা বাড়িতে মাকে সেলাই করতে দেখি। আমাদের জন্য জামা-কাপড়, জামার ওপর সুন্দর নকশা ইত্যাদি অনেক সূচিশিল্প তাঁরা করেন। সুঁই, সুতার নানারকম কাজ আমরা নিজেরাও করি। যেমন-বোতাম লাগানো, ছেঁড়া কাপড় জোড়া দেয়া, ছোটখাটো রুমাল, টেবিলের কাপড় ইত্যাদি। গ্রামে ও শহরে অনেক বাড়িতেই আমরা কাঁথা ব্যবহার করি। কিছু আছে সাধারণ কাঁথা আবার কিছু আছে নকশিকাঁথা। বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জে সাধারণ পরিবারের মহিলারা এখনো নানা রকম নকশিকাঁথা তৈরি করছেন। এই নকশিকাঁথার পরিচিতি ও খ্যাতি লোকশিল্প হিসেবে পৃথিবীর সর্বত্র। এই শিল্প আমাদের অর্থনীতিতেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এরুপ সূচিশিল্প সম্পর্কে জানতে হলে আমাদের জানতে হবে বিভিন্ন সুঁই ও ফোঁড়ের সম্বন্ধে। তাহলে চলো বন্ধুরা পরিচিত হওয়া যাক বিভিন্ন ফোঁড়ের ব্যাপারে।

 

ফেলনা জিনিস দিয়ে শিল্পকর্ম

কোনো কাজে লাগবে না ভেবে জিনিস আমরা ফেলে দেই, সেগুলোকেই বলি ফেলনা জিনিস। একটু চিন্তা করে নিজের কল্পনাশক্তিকে কাজে লাগিয়ে এসব ফেলনা জিনিস দিয়েও আমরা অনেক সুন্দর-সুন্দর শিল্পকর্ম তৈরি করতে পারি। তাহলে দেখে ফেলা যাক কয়েকটি ফেলনা জিনিস দিয়ে তৈরি শিল্পকর্ম নিয়ে।

ঝটপট দিয়ে ফেলো নিচের কুইজটি

 

স্মার্টবুকটি তোমার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলোনা কিন্তু!